সব খবর সবার আগে।

প্রাণের চেয়েও বেশি জরুরি নির্বাচন, ধর্মরক্ষা! কুম্ভ-ভোটের সমাবেশেই করোনার বাড়বাড়ন্ত, দায় নেবে কি সরকার? 

গতবছর প্রথমবারের মতো মহামারীর দেখেছিল ভারত‌। বেশকিছু নতুন নতুন নাম, পোশাকের সঙ্গে পরিচয় হয়েছিল। সেইসঙ্গে দেখেছিল ভয়ঙ্কর বিপর্যয়। ঘর বন্দী জীবন, অর্থসংকট, তীব্র অনাহার, অভাব, আর সেই সঙ্গে মৃত্যু!

সেই ভয়ে পুরোপুরি কেটে যায়নি। সাময়িক বিরতি দিয়েছিল। হয়তো মানুষ কতটা সচেতন সেটা দেখার জন্যই। কিন্তু এই দেশে সচেতনতাবোধ গড়ে তোলা যে কার্যত অসম্ভব তা প্রমান করলো করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। আর যে ঢেউয়ের জেরে এখন‌ও পর্যন্ত আড়াই লক্ষের‌ও বেশি মানুষের প্রাণ চলে গেল। আর এর নেপথ্যে রাজনৈতিক নেতা-নেত্রীদের। আর ধর্মভীরু একদল মানুষকে।

আরও পড়ুন- প্রভাবশালীদের হুমকি! “আপাতত লন্ডনেই থাকবো” দেশে ফিরতে নারাজ সেরাম ইনস্টিটিউটের কর্ণধার আদর পুনাওয়ালা

করোনার এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতেই চার রাজ্য একটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে চলে নির্বাচন। মুখে মাস্ক নেই, নেই সামাজিক দূরত্ব মানার নির্দেশ। যত বেশি লোক তত চওড়া হাসি রাজনৈতিক নেতাদের মুখে। আর এতেই পরমানন্দ অণুজীবাণু টির। একের পর এক শরীরে আক্রমণ। এই ছবি হয়তো দেশের পাঁচ রাজ্যের। ‌ সবচেয়ে বেশি বাংলার।

কিন্তু দেশের অন্য প্রান্তের ছবিটাও একই রকম ভয়াবহ। করোনার চোখ রাঙানি উপেক্ষা করে চলছে কুম্ভ মেলা। শাহি স্নান। ল্যাঙ্গোট পরে কাতারে কাতারে সাধু সন্ন্যাসীর ভীর। করোনার কথা বললে তাঁদের বক্তব্য, এই পুণ্য গঙ্গায় চান করলে সব করোনা পালিয়ে যাবে।‌ তবে করোনা পালাবে কিনা জানা নেই, কিন্তু মানুষের প্রাণ যে হারাচ্ছে তা বলা বাহুল্য।

এবার প্রশ্ন ওঠে এই দুই ক্ষেত্রে সরকার কি ভূমিকা নিয়েছিল! কেনই বা করোনা আবহে কুম্ভ মেলা আয়োজনের অনুমতি দেওয়া হল? কেনই বা শুধুমাত্র ক্ষমতা দখলের লোভের জন্য এই পাঁচ রাজ্যের মানুষদের এত বড় বিপর্যয়ের সামনে ঠেলে দেওয়া হল? মানুষের প্রাণের থেকেও কি এগুলো এত বেশি প্রয়োজনীয় ছিল?

বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, মার্চ মাসের আগেই করোনা যে ফের ফিরতে চলেছে সেই বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারকে সতর্ক করা হয়েছিল। করোনাভাইরাসের কয়েকটি মিউট্যান্ট প্রজাতিতে ফের মাথাচাড়া দিতে পারে সেই বিষয়ে অবগত করা হয়েছিল। কিন্তু শুধুমাত্র সতর্ক‌ই করা হয়েছিল। সেই বিষয়ে ন্যূনতম মাথা ঘামায়নি সরকার মাথা ঘামায়নি আম আদমি। আর যার ফলস্বরূপ এই বিপর্যয়।

ইনসাকগের ইনস্টিটিউট অব লাইফ সায়েন্স বিভাগের ডিরেক্টর , অজয় পান্ডা’র কথায় , ফেব্রুয়ারিতেই করােনার ডবল ভ্যারিয়ান্ট বি .১.৬১৭ নিয়ে সতর্ক করা হয়েছিল । ন্যাশনাল সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোলকে বিস্তারিত রিপাের্ট জমা করা হয়েছিল । দেশের অন্তত ১০ টি ল্যাবােরেটরিতে মিউট্যান্ট ভাইরাসের জিনােম সিকুয়েন্স করে গবেষণা শুরু হয়ে গিয়েছিল । কিন্তু সব চেষ্টাই ব্যর্থ হয়ে গেল ভারতবাসী আর‌ রাজনৈতিক নেতা-নেত্রীদের অসচেতনতার কারণে। ভাইরাস যে আবার শক্তি বাড়িয়ে ফিরে আসতে পারে , তা কল্পনাও করেননি কেউ । কেউ । মহারাষ্ট্রে করােনা আক্রান্তদের ১৫-২০ শতাংশর নমুনাতেই ডবল মিউট্যান্ট প্রজাতির স্ট্রেন । পাওয়া গিয়েছিল সে সময়।

এখন হয়তো আর‌ও কয়েক লক্ষ প্রাণের বিনিময়ে নিয়ন্ত্রণে আসতে পারে ভাইরাস।

_taboola.push({mode:'thumbnails-a', container:'taboola-below-article', placement:'below-article', target_type: 'mix'}); window._taboola = window._taboola || []; _taboola.push({mode:'thumbnails-rr', container:'taboola-below-article-second', placement:'below-article-2nd', target_type: 'mix'});
You might also like
Comments
Loading...