দেশ

কোনও আফগানকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের অনুমতি ছাড়া বিতাড়িত করা যাবে না ভারত থেকে, নির্দেশ কেন্দ্রের

আফগানিস্তান তালিবানদের দখলে যাওয়ার পরই ভারতের তরফে জানানো হয় যে সে দেশে থাকা হিন্দু ও শিখদের এদেশে আশ্রয় দেওয়া হবে। ইতিমধ্যেই নানান হিন্দু ও শিখ এদেশে এসেছেন। সেই সমস্ত আফগান নাগরিককে যাতে ভারত থেকে বিতাড়িত না করা হয়, এই কারণে নতুন গাইডলাইন প্রকাশ করেছে কেন্দ্র। এতে জানানো হয়েছে যে কোনও আফগান ভারত ছাড়বেন কী না, এই সিদ্ধান্ত নেবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।

কোনও আফগান নাগরিক যাতে কোন সমস্যার মুখে পড়তে না পারেন, এই কারণে এই ব্যবস্থা। কারণ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আগেই জানিয়েছিলেন যে আফগানিস্তান থেকে আগত হিন্দু ও শিখদের ভারতে জায়গা দেওয়া হবে। এবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তরফে জানানো হল যে কোনও আফগান ভারত ছাড়বেন কী না এই সিদ্ধান্ত নেবে একমাত্র স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। রেজিস্ট্রেশন অফিস থেকে তাদের দেশ ছাড়তে বলা যাবে না।

এই বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফে বলা হয়, যদি কোনও আফগান নিজের ইচ্ছায় ভারত ছাড়তে চান, তাহলে তিনি তা করতে পারেন। কিন্তু যদি রেজিস্ট্রেশন অফিস থেকে তাদের ‘লিভ ইন্ডিয়া নোটিস’ তথা ভারত ছাড়ার নোটিশ দেওয়া যাবে না। সেই সিদ্ধান্ত কেবলমাত্র নিতে পারে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। এর ফলে আফগান নাগরিকরা অতিরিক্ত সুরক্ষা পাবে বলে মত কেন্দ্রের।

এর পাশাপাশি আরও জানানো হয়েছে যে, ভারতে বসবাসকারী যে কোনও আফগানের ক্ষেত্রে ভিসার মেয়াদ বিনামূল্যেই বাড়ানো হবে। পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত এমন সিদ্ধান্তই বলবৎ থাকবে। এ ছাড়াও বলা হয়েছে কোনও আফগান যদি এই দেশে এসে পড়াশোনা করতে চান, তাহলে কেন্দ্রীয় সরকারের সংশ্লিষ্ট পোর্টালে গিয়ে আবেদন করতে পারবেন।

আরও পড়ুন- আইএনএস বিক্রান্ত বিস্ফোরণে উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি, বিশেষ নজরদারি কোচিন শিপইয়ার্ডে

কিছুদিন আগেই তালিবানের সঙ্গে বৈঠকে করে ভারত। গত মঙ্গলবার বিকেলে কাতারের দোহায় বৈঠক হয় ভারত-তালিবানের। ভারতের পক্ষ থেকে এই বৈঠকে যোগ দেন রাষ্ট্রদূত দীপক মিত্তল। তালিবানের পক্ষ থেকে এই বৈঠকে উপস্থিত ছিল নেতা আব্বাস স্তানিকজাইয়ের। সূত্রের খবর, সেই বৈঠকে ভারতের পক্ষ থেকে তালিবানকে বেশ কিছু কড়া বার্তা দেওয়া হয়েছে।

সূত্রের খবর অনুযায়ী, তালিবানই ভারতের সঙ্গে বৈঠক করতে চেয়েছিল। সেই মতোই আয়োজন হয় বৈঠকের। এই বৈঠকে ভারত তালিবানকে বেশ কড়াভাবে জানায় যাতে আফগানভূমে ভারত-বিরোধী কোনও সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ শোনা না যায়।

আফগানিস্তানে থাকা ভারতীয়দের সুরক্ষা ও তাদের নিরাপদে ফিরিয়ে আনার বিষয়েও আলোচনা হয়েছে এই বৈঠকে। এরই সঙ্গে তালিবান আফগানিস্তান দখল করার পরই নানান জঙ্গি সংগঠন যেভাবে একে পছন্দের জায়গা হিসেবে ব্যবহার করতে শুরু করেছে, এ নিয়ে ভারতের তরফে তুমুল আপত্তি জানানো হয়েছে।

Related Articles

Back to top button