সব খবর সবার আগে।

Goa Election: কোটি কোটি টাকা খরচ করেও গোয়াতে লজ্জাজনকভাবে হারতে চলেছে তৃণমূল, ক্ষমতায় থাকছে বিজেপিই! শক্তি বাড়ছে AAP-র

পশ্চিমবঙ্গে তৃতীয়বার ক্ষমতায় আসার পর তৃণমূলের এবার লক্ষ্য জাতীয় রাজনীতি। এই কারণে বাংলা ছাড়াও অন্যান্য রাজ্যেও সংগঠন গড়তে উদ্যত হয়েছে ঘাসফুল শিবির। তৃণমূলের প্রথম লক্ষ্য ছিল ত্রিপুরয়া। কিন্তু ত্রিপুরায় কোনওভাবেই সুবিধা করতে পারে নি মমতার দল। বেশ লজ্জাজনক হার হয়েছে তৃণমূলের।

এরপরই তৃণমূল চেষ্টা চালায় গোয়ায় নিজেদের জমি শক্ত করার। আগামী মাসের ১৪ তারিখ গোয়ায় বিধানসভা নির্বাচন। করোনা আবহেই গোয়ায় নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন।

নির্বাচনের আগে ‘টাইমস নাও’ সংবাদমাধ্যমের তরফে সে রাজ্যে একটি জনমত সমীক্ষা চালানো হয়। এই সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে যে গোয়ার বিধানসভা নির্বাচনে একেবারে মুখ থুবড়ে পড়বে তৃণমূল। কোঙ্কণ উপকূলের এই রাজ্যেও লজ্জাজনক হার হবে ঘাসফুল শিবিরের।

টাইমস নাও-এর এই সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে যে গোয়ায় ১৭-২১টি আসন পেয়ে নিজের ক্ষমতা কায়েম রাখবে বিজেপি। অন্যদিকে, এই রাজ্যে ক্রমেই শক্তি বাড়াচ্ছে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের আম আদমি পার্টি। তবে বিজেপিকে ছাপিয়ে যেতে পারবে না AAP। বিধানসভা নির্বাচনে ৮-১১টি আসন পেতে পারে আম আদমি পার্টি। অন্যদিকে, কংগ্রেস পেতে পারে ৪-৬টি আসন।

সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে যে প্রায় ২৪ শতাংশ মানুষ প্রমোদ সাওয়ান্তকেই ফের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে চাইছে। যদিও আম আদমি পার্টির তরফে এখনও পর্যন্ত মুখ্যমন্ত্রীর মুখ হিসেবে কোনও নাম ঘোষণা করা হয় নি।

তবে এসবের মধ্যে কোনওভাবেই স্থান মেলেনি তৃণমূলের। তারা আদৌ কতগুলি আসন পাবে বা আদৌ পাবে কী না, তা নিয়ে কোনও তথ্য মেলেনি এই সমীক্ষায়। গোয়ার বিধানসভা নির্বাচনের জন্য কোটি কোটি টাকা খরচ করছে তৃণমূল। এমনকি বাংলা থেকে নানান নেতা গিয়ে সে রাজ্যে প্রচার চালিয়েছে। গিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেও। কিন্তু তবুও হয়ত তৃণমূলের গোয়ায় সংগঠন গড়ার স্বপ্ন অধরাই থেকে যাবে মনে করা হচ্ছে।

You might also like
Comments
Loading...