সব খবর সবার আগে।

মানবতার ধ্বংস অনিবার্য, হাতির পর এবার গর্ভবতী গরুকে বিস্ফোরক

কেরলের নৃশংসতার রেশ এখনও উজ্জ্বল রয়েছে দেশবাসীর মনে। এরই মধ্যে ফের মর্মান্তিক ঘটনার শিকার হলো এক গর্ভবতী গরু। গত ২৬শে মে হিমাচল প্রদেশের বিলাসপুরে খাবারে মোড়া বিস্ফোরক চিবিয়ে ফেলে সে। এরপরই চোয়াল ছিন্নভিন্ন হয়ে যায় তার। মালিকের দাবি, গরুটির গলাতেও বেশ গভীর ক্ষত তৈরি হয়েছে। তবে অসহ্য যন্ত্রণার হাত থেকে কেরলের হাতিটি রেহাই পেলেও গর্ভবতী গরুটি এখনও বেঁচে রয়েছে।

আহত গরুটির মালিক গুরদয়াল সিং সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিয়ো তৈরি করে প্রশাসনের কাছে ওই নৃশংসতার বিচার চেয়েছেন। সংবাদমাধ্যমের খবর, বিস্ফোরণের জন্য গরুটির চোয়াল ছাড়াও গলার একাংশেও বিশাল ক্ষত তৈরি হয়েছে।

গুরদয়াল সিংয়ের দাবি, এই ঘটনার জন্য তাঁর প্রতিবেশী নন্দলাল দায়ী। তার জমিতে প্রায়ই চলে যেত গরুটি। তাই ওই গরুর ব্যবস্থা নিতেই ময়দার ভেতরে বিস্ফোরক ভরে তা জমিতে ফেলে রেখে দিয়েছিল। সেটাই খেয়ে ফেলে গরুটি। তারপর মুখের ভিতর আচমকা বিস্ফোরণ। ঘটনার পর থেকে বেপাত্তা তার প্রতিবেশী নন্দলাল।

পুলিসের বক্তব্য, ময়দার মধ্যে বিস্ফোরক ভরে একটি আলু বোম বানানো হয়েছিল। সেটি গরুটি খেয়ে নিলে মুখের মধ্যেই তা ফেটে যায়। ঘটনায় একটি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। গরুরটি মালিক অভিযোগ করেছেন, তার প্রতিবেশী যে কাজ করেছে এর জন্য তার কোনও আক্ষেপও নেই।

প্রসঙ্গত, গত ২৭শে মে কেরলের মল্লপুরমে একটি সন্তানসম্ভবা হস্তিনীকে বোমাভরা আনারস খাইয়ে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেওয়া হল। সেই বিস্ফোরকের জন্য তার মুখ ও গলায় গভীর ক্ষত তৈরি হয়। তারপর টানা ১৪ দিন না খেয়ে অসহ্য যন্ত্রণায় ভেলিয়ার জলে দাঁড়িয়ে থেকে মারা যায় হাতিটি। ওই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত এক রবার চাষীকে গ্রেফতারও করা হয়েছে।

_taboola.push({mode:'thumbnails-a', container:'taboola-below-article', placement:'below-article', target_type: 'mix'}); window._taboola = window._taboola || []; _taboola.push({mode:'thumbnails-rr', container:'taboola-below-article-second', placement:'below-article-2nd', target_type: 'mix'});
Comments
Loading...
Share