সব খবর সবার আগে।

রাজ্যসভা ভোটের ফলাফলে কিছু রাজ্যে টিকে রইল কংগ্রেস, মণিপুরে স্পিকারের উদারতায় জয় বিজেপির

করোনা সংক্রমনের মাঝেই দেশজুড়ে সম্পন্ন হলো রাজ্যসভা ভোট। যার ফলাফলে নতুন কোনো চমক নেই। রাজস্থান ও মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেসের অস্ত্বিত্ব টিকে থাকলেও বাকি রাজ্যে গেরুয়া শিবিরের জয়জয়কার। গুজরাতে একটি আসনে হেরেছে কংগ্রেস, যেখানে কিছুদিন আগেও জয়ের জায়গা স্পষ্ট ছিল। অন্যদিকে মণিপুরে স্পিকারের উদারতায় জয়লাভ বিজেপির।

মণিপুর থেকে মোট ৫৯ জন ভোটদাতার মধ্যে ৫২ জন ভোটদান করেছেন। যার মধ্যে ২৮টি ভোট পেয়ে রাজ্যসভায় নির্বাচিত হয়েছেন রাজা সানাজাওবা লেইশেমবা। এর মধ্যে আদালতের নিয়মানুযায়ী সাত জন কংগ্রেস বিধায়ক বিধানসভায় ঢুকতে পারেননি। কিন্তু স্পিকারের অনুমতিতে তাদের মধ্যে যে বিজেপির পক্ষে, তার ক্ষেত্রে মিলেছে ভোটদানের ছাড়পত্র। বাকিদের ছাড় দেওয়া হয়নি।

রাজস্থানে হিসাব মতোই কংগ্রেস দুটি ও বিজেপি একটি আসন পেয়েছে। কিন্তু সিট না থাকা সত্ত্বেও দলিত প্রার্থীকে হারাতে বিজেপি অতিরিক্ত প্রার্থীকে সামিল করেছিলেন বলে অভিযোগ তুললেন মুখ্যমন্ত্রী গেহলট। রাহুল গান্ধীর কাছের মানুষ কেসি ভেনুগোপাল রাজস্থান থেকে নির্বাচিত হলেন।

মধ্যপ্রদেশে জিতেছেন দুই পদস্থ নেতা, দিগ্বিজয় সিং ও জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া। তবে এবার তারা বসবেন ভিন্ন প্রান্তে। মোট দুটি আসন পেল বিজেপি এবং একটি কংগ্রেস।

ঝাড়খণ্ডে জিতেছেন গুরুজি শিবু সোরেন। অন্য আসনটি পেয়েছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি। এছাড়া অন্ধ্রপ্রদেশে চারটি আসনই জগন রেড্ডির খাতায়।

গুজরাতে বিজেপির কথা পুরোপুরি মিলল। সেখানে তিনটি আসনই জিতেছে পদ্মফুল। কংগ্রেসের বর্ষীয়ান নেতা শক্তিসং গোহিল গুজরাত থেকে নির্বাচিত হলেন। প্রদীপসিং সোলাঙ্কি যদিও কংগ্রেসের টিকিটে হেরে গেলেন।

মেঘালয়ের একমাত্র আসন পেয়েছে মেঘালয় ডেমোক্র্যাটিক অ্যালায়েন্স। মিজোরামে এমএনএফ প্রার্থীর জয়। দেশে করোনা সংক্রমণের জেরে ক্রমেই পিছিয়ে যাচ্ছিল রাজ্যসভা নির্বাচন। অবশেষে সেটি সম্পন্ন হল। এদিন বেশ কিছু রাজ্যের বিধায়করা সংক্রমন এড়াতে পিপিই কিট পরে এসেছিলেন, বিশেষত ইতিমধ্যেই যারা করোনা সংক্রামিত।

You might also like
Leave a Comment