দেশ

‘ছ’মাসের মধ্যেই মহারাষ্ট্রের নতুন সরকারের পতন হবে’, শিন্ডে মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর ভবিষ্যৎবাণী এনসিপি প্রধান শরদ পাওয়ারের

২০১৯ সালের মহারাষ্ট্র (Maharashtra) বিধানসভা নির্বাচনের পর এনসিপি (NCP), কংগ্রেস (Congress) এবং শিবসেনা (Shiv Sena) রাজ্যের সরকার গঠনের জন্য জোটবদ্ধ হয়। সেই সময় বিজেপির (BJP) আসন সংখ্যা ছাপিয়ে যায় এই জোট। যদিও বিজেপি একক বৃহত্তম দল হয় ওই নির্বাচনে। আর এরপরই গেরুয়া শিবিরের অনেক নেতা ঘোষণা করেছিলেন যে কয়েক মাসের মধ্যেই এই তিনদলীয় জোট ভেঙে যাবে।

এরপর কেটে গিয়েছে আড়াই বছর। কয়েক মাস না হলেও আড়াই বছর পর সত্যিই ভেঙে যায় এই জোট। মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে সরে দাঁড়ান উদ্ধব ঠাকরে। মহারাষ্ট্রের নতুন মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন একনাথ শিন্ডে। বিজেপির সঙ্গে জোট বেঁধে মহারাষ্ট্রের গদিতে এই কিছুদিন হল বসেছেন তিনি। আর এরই মধ্যে মহারাষ্ট্রের এই নতুন সরকার কতদিন টিকবে, তা নিয়ে ভবিষ্যৎবাণী করলেন এনসিপি প্রধান শরদ পাওয়ার।

গতকাল, রবিবার সন্ধ্যায় এনসিপির বৈঠকে শরদ পওয়ার বলেন যে আগামী ছ’মাসের মধ্যেই পতন হতে পারে মহারাষ্ট্রের নতুন সরকারের। আর এই কারণেই মহারাষ্ট্রে অসময়ে নির্বাচনও হতে পারে বলে দাবী করেন তিনি। সকলকে প্রস্তুত থাকার আবেদন করেছেন শরদ পাওয়ার। উদ্ধব ঠাকরে বনাম একনাথ শিন্ডে সংঘাতে পারদ বেশ চড়ছে। শিবসেনার অন্দরে জটিলতা রোজই বাড়ছে। এই অবস্থায় পওয়ারের মন্তব্য নয়া মাত্রা যোগ করল বলেই মনে করা হচ্ছে।

এসসিপি বিধায়কদের সঙ্গে বৈঠকে পাওয়ারের এহেন বক্তব্য জানাজানি হওয়ার পর কড়া প্রতিক্রিয়া দিয়েছে বিজেপি। দলের এক বর্ষীয়ান নেতার কটাক্ষ করে বলেন, “ছ’মাস পর পাওয়ার মুখ্যমন্ত্রী হতে চাইলে আমরা ওঁকেও সমর্থন দিতে রাজি”। তবে প্রবীণ নেতার বক্তব্যকে একেবার উড়িয়ে দিচ্ছে না রাজনৈতিক মহল। অনেকের মতেই, শিন্ডেকে ততদিনই বিজেপি মুখ্যমন্ত্রীর গদিতে আসীন রাখবে, যতদিন না পর্যন্ত তাদের লক্ষ্যপূরণ হয়। তারজন্য মাস ছয়েকের বেশি সময় নাও লাগতে পারে।

এদিন বৈঠক শেষে এক এনসিপি নেতা বলেন, “শিন্ডেকে যাঁরা সমর্থন করেছেন, সেই সমস্ত বিদ্রোহী বিধায়কের অনেকেই খুশি নন। এ কথা বলেছেন পওয়ার। মন্ত্রিত্ব বণ্টনের পরই অসন্তোষ বাড়বে। যার ফলেই সরকার পড়ে যাবে।

শরদ পাওয়ার আরও জানান, “একবার মন্ত্রীসভার পোর্টফোলিওগুলি বন্টন করা হলে, তাদের সমস্যা সকলের সামনে বেরিয়ে আসবে, যা শেষ পর্যন্ত সরকারের পতনের কারণ হবে”।

ওই এনসিপি নেতা আরও জানান যে শরদ পাওয়ার আশা প্রকাশ করেছেন যে অসন্তুষ্ট বিধায়করা বিজেপির সঙ্গে তাদের এই পরীক্ষা ব্যর্থ হওয়ার পরে দলে ফিরে আসবেন।

Related Articles

Back to top button