সব খবর সবার আগে।

১৩০ কোটি মানুষকে বিনামূল্যে করোনার চিকিৎসা দিতে চালু হয়ে গেল টেলি-হেলথ নেটওয়ার্ক- ‘স্বাস্থ্য!’

স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে দেশের সমস্ত মানুষকে সমান সুযোগ সুবিধা দেওয়ার লক্ষ্যে চালু হলো টেলি-হেলথ নেটওয়ার্ক- ‘স্বাস্থ্য!’ করোনা বিশ্ব সঙ্কট। এর হাত থেকে নিস্তার নেই দেশের কোন মানুষের। এই সঙ্কটে প্রযুক্তিকে কাজে লাগাতে হাত মিলিয়েছে ১০০র বেশি বেসরকারি ও অলাভজনক প্রতিষ্ঠান। নাগরিকদের ক্ষমতায়নের মঞ্চ হিসাবে জিডিটাল হেলথকেয়ারকে গণহারে কাজে লাগানোর লক্ষ্যে এটাই ভারতের প্রথম বড় উদ্যোগ। প্রত্যন্ত এলাকার রোগী ও চিকিৎসকদের মধ্যে যাতে যোগাযোগ গড়ে উঠতে পারে সেই ব্যবস্থা করে দেবে এই স্বাস্থ্য মঞ্চ। প্রথমে হিন্দি, ইংরেজি ও গুজরাটি ভাষায় অ্যাপভিত্তিক পরামর্শ পরিষেবা চালু হবে। পরে তা বাড়ানো হবে আরও ২৫টি ভারতীয় ভাষায়।

করোনার চিকিৎসার জন্য দেশের ১০০ জনের বেশি স্বাস্থ্য পরিষেবা বিশেষজ্ঞ একসঙ্গে মিলে চালু করেছেন দেশজোড়া টেলিমিডিয়া মঞ্চ — ‘স্বাস্থ্য’। এই ব্যবস্থা ডিজিটাল প্রযুক্তির মাধ্যমে ভারতীয়দের যুক্ত করবে সেরা চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য পরিষেবা দাতাদের সঙ্গে। সাম্প্রতিক সঙ্কটের সময়ে টেলিমেডিসিনকে জাতীয় গুরুত্বের জায়গায় তুলে আনতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। সেই আর্জিতে দ্রুত সাড়া দিয়ে দেশের স্বাস্থ্য ও প্রযুক্তিক্ষেত্রের শীর্ষস্থানীয়রা এনেছেন ডিজিটাল প্রযুক্তি মঞ্চ স্বাস্থ্যকে। মোবাইল অ্যাপভিত্তিক এই পরিষেবা ভারতের প্রযুক্তিভিত্তিক ক্ষমতার প্রকাশ। এই মঞ্চ দেশের ১৩০ কোটি মানুষের কাছে পৌঁছে দেবে সাধ্যের মধ্যে চিকিৎসা পরিষেবা পাওয়ার সমান সুযোগ। দেশের যে কোনও অঞ্চলের বাসিন্দারা এবং যে কোনও আয়গোষ্ঠীর লোকেরা এই পরিষেবার সুযোগ নিতে পারবেন।

স্বাস্থ্য একটি অলাভজনক উদ্যোগ। ভারতের চিকিৎসা ব্যবস্থার ক্ষমতা ও প্রযুক্তিগত দক্ষতা প্রশ্নাতীত। এদেশের গুণমান সম্পন্ন প্রাথমিক চিকিৎসার এই সুবিধার গণতন্ত্রীকরণ করে তা সকলের কাছে পৌঁছে দিতে চায় এই মঞ্চ। ভারতের প্রতিটি নাগরিকের কাছে এই সুবিধা তারা পৌঁছে দিতে চায়। ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহারে এই চিকিৎসা ব্যবস্থা যাতে সবার সাধ্যের মধ্যে থাকে ও সবার কাছে পৌঁছায়, তা নিশ্চিত করবে ‘স্বাস্থ্য।’

Leave a Comment