সব খবর সবার আগে।

নতুন বিপদ! আফ্রিকার নতুন কোভিড প্রজাতির সন্ধান মিলল মুম্বইয়ে, আক্রান্ত ৩

একে রামে রক্ষা নেই, তার উপর সুগ্রীব দোসর। ব্রিটেন থেকে আগত নতুন করোনার স্ট্রেনের বিপদের মাঝেই ফের এক দুশ্চিন্তা নিয়ে কপালে ভাঁজ পড়ল ভারতীয়দের। দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে আগত কোভিডের অন্য এক নতুন স্ট্রেনের খোঁজ মিলল মুম্বইতেই। জানা গিয়েছে, নতুন প্রজাতির এই সংক্রমণ তিনটি অ্যান্টিবডি এড়াতে পারে।

এই প্রজাতির ভাইরাসের সন্ধান মিলেছে মহারাষ্ট্রের খারগড়ের টাটা মেমোরিয়াল সেন্টার মুম্বই সংলগ্ন অঞ্চলে। ব্রিটেনের নতুন স্ট্রেনের মতোই এই নতুন প্রজাতির ভাইরাসে জটিল বিভাজন দেখা দিয়েছে। জানা গিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার অতিমারি সৃষ্টিকারী E4846K প্রজাতির মিল রয়েছে এই নতুন ভাইরাসে।

এই বিষয়ে টাটা মেমোরিয়াল সেন্টারের এক গবেষক দলের সদস্য প্রোফেসর নিখিল পটকর জানিয়েছেন যে দক্ষিণ আফ্রিকায় যে তিন ধরণের বিভাজিত প্রজাতির ভাইরাসের সন্ধান মেলে, E4846K তাদের মধ্যে অন্যতম। আপাতত, ৭০০টি নমুনার মধ্যে ৩টি নমুনায়ের সন্ধান মিলেছে। এই প্রজাতিত কোভিড ভাইরাস মানুষের শরীরের তিনটি অ্যান্টিবডির পাহারা এড়াতে পারে।

ইতিমধ্যেই এই নতুন প্রজাতির ভাইরাসকে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ব্রিটেনের নতুন স্ট্রেনের তুলনায় আরও বেশী জটিল বলে আখ্যা দিয়েছেন। যে কোনও ভাইরাসই চরিত্রগতভাবে শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি করে। এবার এই নতুন স্ট্রেন কোভিড ১৯ টিকাকরণ প্রক্রিয়ার বিরুদ্ধে কী প্রতিক্রিয়া দেখায়, এখন তার অপেক্ষাই করছে বিজ্ঞানীরা।

তবে এক্ষেত্রে পটকরের মত, E4846K প্রজাতির ভাইরাসের বিরুদ্ধে স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় তৈরি অ্যান্টিবডির লড়াইয়ের ক্ষমতা কম। এই কারণেই টিকাকরণ ও প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলার ক্ষেত্রে তার আচরণ এখনও অনিশ্চিত। সাধারণত ক্যানসার রোগীদের জন্য জেনেটিক সিকোয়েন্সিং করে থাকলেও কোভিড অতিমারির মোকাবিলায় নভি মুম্বই, রায়গড় ও পানভেলের রোগীদের জন্য এই পরীক্ষার ব্যবিওস্থা করেছে টাটা মেমোরিয়াল সেন্টার।

জানা গিয়েছে যে তিন রোগীর মধ্যে E4846K এর বিভাজন পাওয়া গিয়েছে তারা তিনজনেই পুরুষ ও তাদের বয়স ৩০, ৩২, ও ৪৩ বছর। এই তিন রোগীর দু’জন থানের বাসিন্দা ও তৃতীয় জনের বাড়ি রায়গড়ে। এই তিনজনের শরীরে করোনার মৃদু উপসর্গ দেখা দেওয়ায় এই তিনজনের দু’জন হোম কোয়েরেন্টাইন ও একজন হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।

You might also like
Comments
Loading...