দেশ

ফের বড় ভাঙনের মুখে তৃণমূল, এবার দল ছাড়লেন রাজ্য সাধারণ সম্পাদক

তৃণমূলে এখন নানান দুর্নীতিতে (scam) জর্জরিত। ইডির হাতে গ্রেফতার হয়েছেন রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় (Partha Chatterjee)। আরও নানান দুর্নীতিতেও উঠে এসেছে তৃণমূলের (TMC) নানান নেতাদের নাম। এই পরিস্থিতিতে দল যে বেশ অস্বস্তির মধ্যে পড়েছে, তা বলাই বাহুল্য। এহেন অবস্থায় অনেক তৃণমূল নেতা-কর্মীই দল ছেড়ে বেরিয়ে যাচ্ছেন। এবার দল ছাড়লেন রাজ্য সাধারণ সম্পাদক (General Secretary)।

বাংলায় তৃতীয়বার ক্ষমতায় আসার পর তৃণমূলের এবার লক্ষ্য জাতীয় রাজনীতি। সেই কারণে বাংলা ছাড়াও অন্যান্য রাজ্যেও ঘাঁটি শক্ত করতে উদ্যত হয়েছে ঘাসফুল শিবির। ত্রিপুরাতেও ক্ষমতা দখলের দিকে এগোচ্ছে তৃণমূল। তবে সে রাজ্যের উপনির্বাচনে খাতা না খুলতে পারলেও হাল ছাড়ে নি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল।

তবে এবার ত্রিপুরায় তৃণমূলে দেখা দিল বড় ভাঙন। দল ছাড়লেন ত্রিপুরার রাজ্য সাধারণ সম্পাদক বাপটু চক্রবর্তী। গত বছরই ত্রিপুরার রাজ্য সাধারণ সম্পাদক হন বাপটু চক্রবর্তী। কিন্তু রাজ্যের তৃণমূল সভাপতির সঙ্গে তাঁর সংঘর্ষ ছিল বলে খবর। আর উপনির্বাচনের প্রার্থী ঘোষণার ক্ষেত্রেও দলীর সঙ্গে দূরত্ব তৈরি হয় বাপটুর।

তৃণমূল ছেড়ে এবার তাই কংগ্রেসে যোগ দিলেন বাপটু চক্রবর্তী। তাঁর অভিযোগ, ত্রিপুরাতে তৃণমূলের অনেকেই বিজেপির সঙ্গে আঁতাত রয়েছে। বিজেপিকে সাহায্য করছে তৃণমূলেরই লোকজন। দলের এই কার্যপদ্ধতি মেনে নিতে পারছেন না তিনি। সেই কারণেই তাঁর দল ছাড়ার সিদ্ধান্ত।

অন্যদিকে, বাপটু দল ছাড়া নিয়ে তৃণমূলের দাবী, কংগ্রেসের অনেকেই তৃণমূলে যোগ দেওয়ার জন্য মুখিয়ে রয়েছে। তাই বাপটু দল ছেড়ে গেলেও কোনও সমস্যা নেই। তৃণমূল ছেড়ে কংগ্রেসে যোগ দিয়ে বাপটু বলেন, “তৃণমূল যে লক্ষ্য নিয়ে এই রাজ্যে এগোচ্ছিল, সেই লক্ষ্যে স্থির নেই। তৃণমূলের লোকই ভেতরে ভেতরে বিজেপিকে সাহায্য করছে। বিজেপিকে তৃণমূল হারাতে পারবে না এমন চললে। তাই প্রধান বিরোধী দল হিসেবে আমার মনে হয় কংগ্রেসই পারবে ত্রিপুরাতে বিজেপিকে হারাতে”।

Related Articles

Back to top button