সব খবর সবার আগে।

সাম্প্রদায়িক হিংসায় উস্কানি দেওয়ার অভিযোগ, ভারতে আইনি রক্ষাকবচ হারাল টুইটার

সাম্প্রদায়িক হিংসায় উস্কানি দেওয়ার অভিযোগে এবার ভারতে আইনি রক্ষকবচ হারাল মাইক্রো ব্লগিং সাইট টুইটার। এমনিতেই বেশ কিছুদিন ধরে নতুন ডিজিটাল বিধি নিয়ে কেন্দ্রের সঙ্গে নানান টানাপড়েন চলছিল তাদের। এরপর উত্তরপ্রদেশে এক প্রবীণ ব্যক্তিএ নিগ্রহের ঘটনাকে সাম্প্রদায়িক রূপ দেওয়ার অভিযোগও ওঠে তাদের বিরুদ্ধে। এরপরই গতকাল, মঙ্গলবার রাতে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে যোগীরাজ্যের তরফে। টুইটারের উপর থেকে সমস্ত ভারতীয় আইনি কবচ তুলে নেওয়া হয়েছে যাতে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ও সেই মতো পদক্ষেপ নেওয়া যায়।

কেন্দ্রীয় তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রকের সূত্র অনুযায়ী, সরকারি বিধি লঙ্ঘন করায় ভারতের আইনি রক্ষাকবব হারিয়েছে টুইটার। কেন্দ্রের তরফে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যে, নেট মাধ্যমে প্রকাশিত নানান লেখালেখি ও ভিডিওর উৎস টুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপের মতো সংস্থাগুলিকে জানাতে হবে কেন্দ্রকে। গত মাসে চালু হওয়া নতুন বিধিনিষেধ অন্য সংস্থাগুলি মেনে নিলেও, টুইটারই একমাত্র বেঁকে বসেছে।

এদিকে, উত্তরপ্রদেশে দায়ের হওয়া মামলার কথাও উল্লেখ করা হয়েছে, যা নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে। সম্প্রতি, এক দুষ্কৃতীর দলের হাতে আক্রান্ত হন সুফি আবদুল সামাদ। অভিযোগ, মাদুলি, কবচ বিক্রি করার অপরাধে ওই প্রৌঢ়কে জয় শ্রী রাম ও বন্দেমাতরম বলতে বাধ্য করা হয়। এই ঘটনার ভিডিও নেট মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়তেই তা নিয়ে শুরু হয় বিতর্ক।

তবে উত্তরপ্রদেশের পুলিশের দাবী, ভুল বুঝিয়ে কবচ বিক্রির জন্য ওই ব্যক্তির হামলা করা হয়। আর এটা কোনও সাম্প্রদায়িক হিংসার ঘটনা নয়, কারণ হিন্দু-মুসলিম উভয় মিলেই হামলা চালিয়েছে ওই প্রৌঢ়ের উপর।

উত্তরপ্রদেশের পুলিশের অভিযোগ, এই ঘটনাকে সাম্প্রদায়িক রূপ দেওয়ার জন্য দায়ী টুইটার কর্তৃপক্ষই। যদিও লিখিত বিবৃতিতে সেই অভিযোগ খারিজ করে দেয় টুইটার। কিন্তু তাদের দাবী, সতর্ক করা সত্ত্বেও ওই ঘটনায় সাম্প্রদায়িক মন্তব্যগুলি এখনও মুছে দেয়নি টুইটার। নিগ্রহের ওই ভিডিওকে বিকৃত বলে সতর্কবার্তাও দেয়নি। এই কারণে তাদের বিরুদ্ধে অপরাধমূলক ব্যবস্থা নেওয়াই উচিত। সেই মতো টুইটারের বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক হিংসায় উস্কানি দেওয়ার জন্য মামলা দায়ের করা হয়েছে।

_taboola.push({mode:'thumbnails-a', container:'taboola-below-article', placement:'below-article', target_type: 'mix'}); window._taboola = window._taboola || []; _taboola.push({mode:'thumbnails-rr', container:'taboola-below-article-second', placement:'below-article-2nd', target_type: 'mix'});
You might also like
Comments
Loading...