দেশ

‘আমি রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হলে সিএএ কার্যকরী হতে দেব না, এই আইন মুর্খামির পরিচয়’, নির্বাচনী প্রচারে বেরিয়ে মন্তব্য যশবন্ত সিনহার

সামনেই রাষ্ট্রপতি নির্বাচন (President Eelction)। বিজেপি (BJP) তথা এনডিএ জোটের তরফে এই রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে দ্রৌপদী মুর্মুর (Draupadi Murmu) নাম। অন্যদিকে, বিজেপি বিরোধী দলগুলি একজোট হয়ে রাষ্ট্রপতি পদের জন্য প্রাক্তন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেতা যশবন্ত সিনহার (Yashwant Sinha) নাম ঘোষণা করেছে। নিজের নিজের মতো করে নানান রাজ্যে প্রচার চালাচ্ছেন দুই প্রার্থী।

নির্বাচনী প্রচারে অসম গিয়েছেন রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী যশবন্ত সিনহা। সেখানে গিয়ে বিজেপি বিরোধী দলগুলির সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। সেই বৈঠকে তিনি জানান যে তিনি যদি রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন, তাহলে তিনি দেশে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন কোনওভাবেই কার্যকর হতে দেবেন না।

গতকাল, বুধবার তিনি অসমে বিজেপি-বিরোধী দলগুলির সাংসদ এবং বিধায়কদের সঙ্গে বৈঠক করেন। সেখানে তিনি বলেন, “বিজেপির নেতৃত্বাধীন এনডিএ সরকার কখনও দেশে সিএএ কার্যকরী করতে পারবে না। তার কারণ, তাড়াহুড়ো করে, বোকার মতো এই সংশোধনী আইনের খসড়া করা হয়েছে”।

তাঁর কথায়, “নাগরিকত্ব অসমের একটি বড় সমস্যা। সরকার চেয়েছিল দেশ জুড়ে সিএএ-র বাস্তবায়ন করতে। কিন্তু পেরে উঠল না। এর আগে কোভিড পরিস্থিতিকে অজুহাত হিসাবে খাড়া করেছিল। পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হওয়ার পরেও আইন কার্যকরী করতে পারল না সরকার”।

যশবন্ত সিনহা অভিযোগ করে বলেন, “ক্ষমতায় থাকা ব্যক্তিদের জন্যই বিপন্নতার মুখে গণতন্ত্র”। তাঁর সংযোজন, “আমাদের এটি রক্ষা করতে হবে। আমি যদি রাষ্ট্রপতি ভবনে থাকি, আমি নিশ্চিত করব যে সিএএ কার্যকর করা হচ্ছে না”।

বলে রাখি, আগামী ১৮ই জুলাই রয়েছে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন। তবে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, যশবন্ত সিনহা সমর্থন পেতে বেশ পিছিয়ে রয়েছেন। সিনহাকে সমর্থন করার হার দিনদিন কমছে। আর জেরে জেব বিজেপি অতিরিক্ত অক্সিজেন পাবে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে, তা বলাই বাহুল্য।

Related Articles

Back to top button