সব খবর সবার আগে।

পৃথিবীর দিকে এগিয়ে আসছে স্কুল বাস সাইজের গ্রহাণু! আতঙ্কের মধ্যেই মুখ খুললেন নাসার বিজ্ঞানীরা

ফের পৃথিবীর দিকে এগিয়ে আসছে বিশাল বড় গ্রহাণু (Asteroid)। যে কথা জানতে পেরে পৃথিবী ধ্বংসের আশঙ্কায় কাঁটা হয়েছিলেন সাধারণ মানুষ। এবার এই নিয়েই মুখ খুলল মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা (NASA)।

তারা জানিয়েছে, আজ বৃহস্পতিবার পৃথিবী থেকে মাত্র ৩৬,০০০ কিলোমিটার দূর দিয়ে চলে যাবে ওই মহাজাগতিক বস্তু। তাই পৃথিবীর কোন ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা নেই। যা শুনে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন পৃথিবীবাসী।

আস্ত স্কুল বাসের আকারের ওই গ্রহাণুর নাম ২০২০ এসডবলিউ (2020 SW)। আজ থেকে ৬ দিন আগে এটির আগমনের কথা প্রথম প্রকাশ্যে আনেন আরিজোনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাটালিনা স্কাই সার্ভে। গ্রহাণুটি ১৫ থেকে ৩০ ফুট চওড়া। কিন্তু নাসার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে আকারে এত বড় হওয়া সত্ত্বেও এটি পৃথিবীর কোনো ক্ষতি করবে না। গ্রহাণুটির সঙ্গে পৃথিবীর টক্করের কোনও সম্ভাবনা নেই।

যদি তর্কের খাতিরে ধরা যায় যে, এটি পৃথিবীর দিকে আসত তাহলে চিন্তার কিছু ছিল না কারণ বায়ুমণ্ডলের সংস্পর্শে এসে গ্রহাণুটি টুকরো টুকরো হয়ে যেত। এই ধরনের গ্রহাণু প্রতিবছরই আসে এবং এর ফলে প্রতি এক থেকে দু’বছর অন্তর আমাদের বায়ুমণ্ডলের অল্প করে পরিবর্তন ঘটে।

এই ধরনের গ্রহাণুর সঙ্গে পৃথিবীর সংঘর্ষের সম্ভাবনা কম কিন্তু যদিও অন্য গ্রহের সঙ্গে মহাকর্ষীয় টানে এরা পৃথিবীর কাছে আচমকাই চলে আসে। অনেকক্ষেত্রেই এরা সূর্যের আলো শুষে তাপ বিকিরণ করে। তখন এদের গতিবিধিতে পরিবর্তন হয় যাকে জ্যোতির্বিজ্ঞানের ভাষায় ‘ইয়ার্কোভস্কি এফেক্ট’ বলে।

কিন্তু এই ধরনের গ্রহাণু পৃথিবীর বুকে অনেক সময় আছড়ে পড়ে বিভিন্ন প্রাগৈতিহাসিক বিবর্তন ঘটিয়েছে। ডাইনোসরদের বিলুপ্তির কারণ হিসেবে এরকমই কোন গ্রহাণুর পৃথিবীর বুকে আছড়ে পড়াকে উল্লেখ করেন বিজ্ঞানীরা। তবে এবার সেরকম কোনো সম্ভাবনা নেই তাই মানুষ স্বস্তিতেই থাকতে পারে বলে আশ্বাস দিয়েছেন নাসার বিজ্ঞানীরা।

You might also like
Comments
Loading...