নিউজ

‘কোনোদিনও ক্ষমা করতে পারব না’, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যু বার্ষিকীতে অভিনেতাকে নিয়ে এ কী বললেন পরাণ বন্দোপাধ্যায়?

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, বাংলা চলচ্চিত্র জগতে এক অন্যতম নাম। ইতিহাসের পাতায় স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে তার চরিত্র। ক্যামেরার সামনে তিনি যেন সত্যিই অতুলনীয়।গতকাল ছিল পরান বন্দোপাধ্যায় মৃত্যুবার্ষিকী। অভিনেতার মৃত্যুবার্ষিকীতে স্মৃতির পাতায় ডুব দিলেন অভিনেতা পরান বন্দোপাধ্যায়।

পরান বন্দোপাধ্যায় শুধুমাত্র তার সহকর্মী ছিলেন না, ছিলেন তার কাছের বন্ধু। বহু সুখ দুঃখের মুহুর্ত এক সাথে কাটিয়েছেন। সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে তার স্মৃতি চারণ করেন অভিনেতা পরান বন্দোপাধ্যায়।সুমন চট্টোপাধ্যায় পরিচালিত পিস হেভেন সিনেমার স্মৃতি আজও জীবন্ত অভিনেতার কাছে। তিনি জানান “তখন পরিচালক সুমন বন্দ্যোপাধ্যায়-এর ‘পিস হেভেন’ ছবির শ্যুটিং চলছে। আমি আর সৌমিত্রদা একসঙ্গে কাজ করছি। এক হোটেলে ছিলাম,পাশাপাশি ঘরে। শ্যুটিং শেষ হলেই দু’জনে গিয়ে জমিয়ে বাবু হয়ে বসতাম হোটেলের বিছানায়। শুরু হাত আড্ডা। কত বিষয়, কত রং। পুরোনো টলিপাড়ার কথা বলার ফাঁকে ফাঁকেই কবিতা আবৃত্তি করে উঠতেন সৌমিত্রদা। কী উদাত্ত গলা। মুগ্ধ হয়ে শুধু শুনে যেতাম। অসাধারণ স্মৃতিশক্তির অধিকারী ছিলেন। সাধারণত আশির চৌকাঠ পেরোলে স্মৃতি বিশ্বাসঘাতকতা শুরু করে। ওঁর ক্ষেত্রে একেবারেই তা হয়নি। একটি উদাহরণ দিলে বুঝবেন। নিজের কেরিয়ারে একবারই মাত্র একটি সিজনের জন্য যাত্রায় অভিনয় করেছিলেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। মাত্র এক বছরের জন্য বিভিন্ন প্রত্যন্ত গ্রাম অঞ্চলে অনুষ্ঠান আয়োজকদের সঙ্গে যেতে হাত তাঁকে। তাও সেসব বহু বছর আগের ঘটনা। কয়েক বছর আগে আমি আর সৌমিত্রদা শ্যুটিংয়ের সুবাদেই একটি প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলের উদ্দেশে রওনা দিয়েছি গাড়িতে। রাস্তা খুঁজে পেতেই হিমশিম খাচ্ছে চালক, এমন সময়ে জানলার বাইরে থেকে জায়গাটি জরিপ করে হঠাৎ করে পথ নির্দেশ দিতে শুরু করলেন সৌমিত্রদা! আমরা সবাই তো অবাক। কোনওরকমে জিজ্ঞেস করলাম আপনি কী করে চিনলেন এ জায়গা? এক গাল হেসে জবাব এল, ‘আরে বহু বছর আগে এখানে একবার যাত্রা করতে এসেছিলাম। বেশ চেনা চেনা লাগল। রাস্তাঘাটগুলো ভুলিনি দেখছি, তাই….’

কথা বলতে বলতেই আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন অভিনেতা। তিনি জানান পিস হেভেন শ্যুটিং শেষে একবার আড্ডা মারছি তখন সৌমিত্রদা কবিতা বলছেন আমি গান গাইছি। সঙ্গে মেপে হুইস্কি পান করছেন। আমি অবশ্য ওই রসে বঞ্চিত। তো তা দেখে ভালোবেসেই গলার স্বরটিকে করুণ করে সৌমিত্রদা বলে উঠতেন, ‘ও পরাণ,একটু খাও। একটু খাও না পরাণ’। সেসব শুনে হেসে ফেলতাম। এত ভালোবাসতাম তো তাই সৌমিত্রদার সেকথাও রেখেছিলাম। দু’ ঢোঁক খেয়েওছিলাম ওঁর সম্মান রক্ষার্থে’। হাসতে হাসতে আরও বাতলালেন, ‘এরপর শুরু করল খুনসুটি। ওরে বাবা! সেসব মোটেই আপনার কাছে ফাঁস করতে পারব না। আমাকে ক্ষমা করবেন। এই ছিল আমার সৌমিত্রদা!’

এরপরেই কিছুটা মৃত্যুঞ্জয় ভঙ্গিতে পরান বন্দোপাধ্যায় বলেন ‘ আমি সৌমিত্রদার মৃত্যু অস্বীকার করি!’ হঠাৎ এই বক্তব্য! অভিনেতার মতে “‘যাঁদের যাঁদের জীবনে সত্যিকারের ভালোবেসেছি এবং যাঁরা প্রয়াত হয়েছেন এঁদের মৃত মুখ আমি দেখিনি ইচ্ছে করেই। কারণ বিশ্বাস করি তাঁদের হাসিমুখের স্মৃতিটুকু যদি আমি বুকে আগলে রাখি তাহলে অনেক বেশি জোর পাব মনে। মনে হবে কোথাও বাইরে গেছে তাঁরা, আবার এই এল বলে। এই ব্যাপার আমি আমার মা, স্ত্রীর বিদায়বেলায় আমি যাইনি।’

Related Articles

Back to top button