সব খবর সবার আগে।

করোনা ভাইরাস সম্পর্কিত ভুল তথ্য আটকাতে নতুন উদ্যোগ ফেসবুক-এর

সারা বিশ্ব এখন করোনার জেরে আতঙ্কিত। তার মধ্যেই চলছে করোনা নিয়ে ভুয়ো তথ্য প্রচার। সোশ্যাল মিডিয়া এখন ভুল তথ্যের ঘাঁটি হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই করোনা সম্পর্কে সঠিক তথ্যের আপডেট এবং ভুল তথ্য প্রচার রোধ করতে ফেসবুক (Facebook) এক বিশেষ পদক্ষেপ নিয়েছে। তাই এই নিয়ে এবার মুখ খুললেন ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা ও কর্ণধার মার্ক জুকেরবার্গ।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এক খোলা চিঠিতে তিনি জানান, ‘মানুষকে সচেতন করার জন্য প্রায় ২০০ কোটি ইউজার করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত নানা পোস্ট ফেসবুক (Facebook) ও ইন্সটাগ্রাম (Instagram)-এর মাধ্যমে শেয়ার করছেন। একই ভাবে প্রায় ৩৫ কোটি ব্যবহারকারী করোনা সম্পর্কে জানতে ক্লিক করছেন ফেসবুক (Facebook)-এ। তাই ফেসবুক (Facebook) ও ইন্সটাগ্রাম (Instagram)-এর মাধ্যমে ভুল তথ্য যাতে না ছড়ায় তার জন্য আমরা প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।’

তিনি জানান, মার্চের শুরু থেকেই খবরের সত্যতা যাচাই করতে তাঁর সংস্থার (ফ্যাক্ট-চেকিং) ১২টিরও বেশি নতুন দেশে কাজ শুরু করেছে। ইতিমধ্যেই ৬০০টিরও বেশি ফ্যাক্ট-চেকিং সংস্থার সঙ্গে যুক্ত হয়ে ৫০টিরও বেশি ভাষায় করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নানা তথ্য যাচাইয়ের কাজে লেগেছে ফেসবুক। যদি কোনও পোস্টে ভুল তথ্য থাকে তবে তা সরিয়ে দিচ্ছে ফেসবুক যাতে বিভ্রান্তি না ছড়ায়। মনে করা হচ্ছে এই পদক্ষেপে শীঘ্রই অনেক ভুল তথ্য সরে যাবে সোশ্যাল মিডিয়া থেকে। মানুষের আতঙ্কও কিছুটা কমবে।

জুকেরবার্গ জানান, তাঁর সংস্থা করোনা-এর সঙ্গে সম্পর্কিত কয়েক হাজার এমন ভুল তথ্য ইতিমধ্যেই সরিয়ে দিয়েছে। যেমন- ব্লিচ পান করে ভাইরাস সংক্রমন রোধ করা যায় বা সামাজিক দূরত্ব এই রোগটি ছড়াতে অক্ষম ইত্যাদি। একবার কোনও পোস্ট ফ্যাক্ট-চেকারদের দ্বারা মিথ্যা বা ভুয়ো হিসাবে চিহ্নিত হলে, সংস্থা সেগুলিকে ছড়িয়ে পড়া থেকে আটকাতে পারবে। তিনি জানান, মার্চ মাসে সংস্থার নিয়োজিত ফ্যাক্ট-চেকাররা এই ধরণের প্রায় ৪,০০০-এর মতও পোস্ট সরিয়েছেন ফেসবুক থেকে।

সম্প্রতি করোনাভাইরাস সম্পর্কিত ভুল তথ্য প্রকাশের জন্য ফ্যাক্ট-চেকারদের লেখাগুলিতে ‘গেট দ্য ফ্যাক্টস’ নামে একটি নতুন ফিচার চালু করেছে সংস্থা। জুকেরবার্গ জানান, তাঁর সংস্থা খুব শীঘ্রই, এমন লোক যারা ভুল তথ্য ছড়াচ্ছেন তাদের পোস্টগুলিও আলাদা করে দেখাতে শুরু করবে। যাঁরা এর আগে কোভিড-১৯ সম্পর্কিত ভুল তথ্য ছড়িয়েছেন তাদেরকেও সঠিক তথ্যগুলি পাঠানো হবে। এতে মানুষের বিভ্রান্তি অনেকটা কমবে এবং ভুল তথ্যের হাত থেকে অনেক মানুষই নিষ্কৃতি পাবেন। ফেসবুকের এই পদক্ষেপকে সাধুবাদ জানিয়েছেন নেটিজেনরা।

You might also like
Leave a Comment