সব খবর সবার আগে।

বাংলার টক্কর চীনকে! একসঙ্গে ১০০ জনকে ভিডিও কলের সুবিধা, অ‍্যাপ বানিয়ে চমক পড়ুয়ার!

লকডাউনে সবাই অনেক কিছু করেছে। কেউ রেধেঁছে, কেউ সাংস্কৃতিক চর্চা করেছে। আর কেউ কেউ অ‍্যাপ বানিয়ে চমক দিচ্ছে। মাধ্যমিক পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর কয়েকটা দিন কাটতে না কাটতেই লকডাউন। পড়াশোনায় ছুটি পেলেও বাড়ি থেকে এক পা বাইরে ফেলাও নিষেধ। তাই বন্ধুদের সঙ্গে দেখা হওয়ার মাধ্যম একমাত্র ভিডিও কল। দিব‍্য সেভাবেই দিন কাটছিল। কিন্তু আচমকাই কানে এল লাদাখ সীমান্তে সংঘর্ষের কথা।

চীনা বর্বরতার কথা শোনার পর চীনা প্রযুক্তি ব্যবহারে দেশজুড়ে তৈরি হল অনীহা। নিজে কিছু করে দেখানোর জেদও তৈরি হল। সেই জেদকে পুঁজি করেই ‘দৃষ্টি’ অ্যাপ বানিয়ে ফেলল ঘাটালের রাধানগর গ্রামের ‘অর্ণব মোদক’ নামে এক মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী। গুগল প্লে স্টোরেও পাওয়া যাচ্ছে অ্যাপটি।

এই অসাধ্য সাধন করেছে ঘাটালের জলসরা রামকৃষ্ণ হাইস্কুলের ছাত্র অর্ণব। তাঁর কথায়, “মাধ্যমিক পরীক্ষা দেওয়ার পর কিছু একটা করার তাগিদ চেপে বসেছিল। একদিন শুনলাম ভারত-চীনের সংঘর্ষের জেরে সমস্ত চীনা অ্যাপগুলি বন্ধ করার দাবি উঠেছে। তখন ভাবলাম একটা যদি অ্যাপ বানানো যায়। তারপরই ভাবনাচিন্তা করতে থাকি। গত আড়াই মাসে দৈনিক ১৬ থেকে ১৮ ঘন্টা সময় ব্যয় করে তৈরি করে ফেলি একটি অ্যাপ। নাম দিয়েছি ‘দৃষ্টি’।”

কি বিশেষত্ব এই অ্যাপের?

অধিকাংশ ভিডিও কনফারেন্সের অ্যাপে আধ ঘন্টার বেশি কথা বলা যায় না। কিন্তু ‘দৃষ্টি’ অ্যাপে ১০০ জন কথা বলতে পারবেন এবং যতক্ষণ খুশি কথা বলা যাবে। এই অ্যাপ সম্পূর্ণ নিরাপদ। এখান থেকে কোনও তথ্য হ্যাক হওয়ার আশঙ্কাও নেই। অর্ণব বলে, “এই অ্যাপের মাধ্যমে সবচেয়ে বেশি সুবিধা পাবেন তাঁরা যাঁরা অনলাইনে পড়াশোনা করেন। এমনকি অফিস, আদালতেও এই অ্যাপ খুবই কাজে লাগবে।” মোবাইল অ্যাপের রেটিং সংস্থা ইন্টারন্যাশন্যাল এজ রেটিং কোয়ালিশন এই অ্যাপকে ৩.৫ রেটিং দিয়েছে। গুগল প্লে স্টোরেও পাওয়া যাচ্ছে অ্যাপটি।

ভবিষ্যতে কি হতে চায় এই বিস্ময় বালক?

সফটওয়‍্যার নিয়ে পড়াশোনা করতে চায় অর্ণব। তাঁর কাজে বাধা দিতে চাননি ছাত্রের বাবা হারাধনবাবুও। তিনি বলেন, “সপ্তম শ্রেণি পর্যন্ত অর্ণব ক্লাসে প্রথম হত। কিন্তু এই মোবাইল নেশায় পড়াশোনায় পিছিয়ে পড়ে। আমার তো খুব ভয় হত। কিন্তু ও কথা দিয়েছে মাধ্যমিকের ফল ভাল হবে। ভবিষ্যতে ও সফটওয়্যার নিয়ে পড়তে চায়। আমরা রাজি হয়েছি। ও যা করেছে তার জন্য আমরা খুবই গর্বিত।”

You might also like
Comments
Loading...