সব খবর সবার আগে।

বঙ্গ নির্বাচনে এবার উৎসুক পাকিস্তান‌ও! মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ‘বাংলার বাঘিনী’ আখ্যা পাক কূটনীতিবিদের

আন্তর্জাতিক মঞ্চেও ছটা ফেলছে বঙ্গ নির্বাচন। এককালে‌ নয়া দিল্লীতে পাকিস্তানের হাই কমিশনার হিসেবে কাজ করা অবসরপ্রাপ্ত কূটনীতিবীদ আব্দুল বাসিত তৃণমূল কংগ্রেস আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ব্যাপক প্রশংসা করেছেন।  তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বাংলার বাঘিনী আখ্যা দিয়েছেন তিনি।

বাসিত ২০১৬ সালে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের সময় কলকাতায় এসেছিলেন। নিজের লেখনীতে তিনি জানিয়েছেন, প্রথম বৈঠকে দিদি নিজের নম্রতা, রাজনৈতিক কুশলতা এবং বুদ্ধিমতার পরিচয় দিয়েছিলেন, আর সেটি ওনার মনে ছাপ ফেলেছে। আব্দুল লেখেন, আমি এই বৈঠক সব সময় মনে রাখব। সেই সময় কাশ্মীরি আলগাওবাদীদের সঙ্গে সাক্ষাতের কারণে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে সম্পর্কে ফাটল ধরেছিল। আবদুল বাসিত জানান, ভারতের কড়া মনোভাবের কারণে পাকিস্তান‌ও স্তম্ভিত ছিল।‌ ওই বৈঠকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আমাকে বলেছিলেন যে ভারত-পাকিস্তানের সম্পর্কের উন্নতি করতে কি করতে হবে। তিনি লেখেন, বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচন বিষাক্ত হয়ে গিয়েছে, আর ভারতে এখন একজনই নেতা আছেন, যিনি বিজেপির বিরুদ্ধে লড়ার সাহস রাখেন। তিনি লেখেন, কংগ্রেস পার্টির নেতৃত্ব দিনদিন কমজোর হয়ে পড়েছে, আর তাঁদের ভবিষ্যৎও অন্ধকার।

বাসিত বলেন, মমতা আমার কথা খুব মন দিয়ে শুনেছিলেন আর নরেন্দ্র মোদী বিরোধী নেতা হওয়ার পরেও তিনি নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে কিছু বলেছিলেন না। আব্দুল বাসিত বঙ্গ মুখ্যমন্ত্রীকে প্রকৃত দেশভক্ত আর রাজনেতা বলে সম্বোধন করেন। সেইসঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের কিছু প্রকল্পের কথাও উল্লেখ করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশংসা করেন। এছাড়াও আবদুল বাসিত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে পশ্চিমবঙ্গ আর সিন্ধ প্রদেশের অংশীদারিত্বের পরামর্শ দিয়েছিলেন, এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেটিতে রুচিও দেখিয়েছিলেন বলে দাবি করেন প্রাক্তন পাক কূটনীতিবীদ।

_taboola.push({mode:'thumbnails-a', container:'taboola-below-article', placement:'below-article', target_type: 'mix'}); window._taboola = window._taboola || []; _taboola.push({mode:'thumbnails-rr', container:'taboola-below-article-second', placement:'below-article-2nd', target_type: 'mix'});
You might also like
Comments
Loading...