রাজ্য

ডায়মন্ড হারবার থেকে সমান্তরাল সরকার চালানো হয় কীভাবে? অভিষেকের ডায়মন্ড হারবার মডেল নিয়ে মমতাকে খোঁচা অমিত মালব্যের

কখনও প্রজাতন্ত্র দিবসে বাংলার ট্যাবলো বাতিল তো কখনও আবার আইএএস ক্যাডার রুল সংশোধন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার এই নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমন শানালেন বিজেপির আইটি সেলের প্রধান অমিত মালব্য।

আজ, বুধবার একটি টুইট করেন অমিত মালব্য। এই টুইটে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লেখার পরিবর্তে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বরং দেখা উচিত যে ডায়মন্ড হারবারে একটা সমান্তরাল সরকার কীভাবে চলছে? এই কথার মাধ্যমে যে তিনি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডায়মন্ড হারবার মডেল নিয়ে খোঁচা দিয়েছেন, তা বেশ স্পষ্ট।

অমিত মালব্য এও বলেন যে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সংসদীয় এলাকা থেকে প্রত্যেক দিন করোনা নিয়ে নানান তথ্য মিডিয়ায় দেওয়া হচ্ছে। রাজ্যের বাকি জায়গায় যে করোনা পরিস্থিতি খুবই খারাপ, তা প্রমাণ করতেই কী এই ব্যবস্থা?

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডায়মন্ড হারবার মডেলের ভূয়সী প্রশংসা হয়েছে দলের মধ্যে ও দলের বাইরেও। এবার সেই ডায়মন্ড হারবার মডেল নিয়েই তোপ দাগলেন অমিত মালব্য। এর পাশাপাশি বিজেপি এও বলার চেষ্টা করছে যে তৃণমূলে দুটি পাওয়ার সেন্টার তৈরি হয়েছে।

মালব্যের টুইট প্রসঙ্গে তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ শান্তনু সেন বলেন, “বিধানসভা নির্বাচনের আগে এই অমিত মালব্য ভুয়ো ছবি পোস্ট করে এরাজ্যের বলে চালিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তৃণমূল কংগ্রেসকে প্রতিহত করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তা শেষপর্যন্ত পন্ডশ্রমে পরিণত হয়েছে। ফের তিনি ভেসে উঠতে চাইছেন। ওঁকে সাফ বলে দিতে চাই, এই দলটার নাম তৃণমূল কংগ্রেস। দলের নেত্রীর নামে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁকে সামনে রেখে আমরা উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাই”।

অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় সম্পর্কে কথা বলতে গিয়ে শান্তনু বলেন, “২০২৪ সালে বিজেপিকে গদিচ্যুত করার জন্য অভিষেক বন্দ্যোপাধ্য়ায়কে সামনে রেখে আমরা অন্য রাজ্যে বিস্তার লাভের চেষ্টা করছি। এটা বিজেপি নয় যে একজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তার কিছু সাকরেদকে নিয়ে সাংসদ সম্পর্ক যাত্রা শুরু করেন। এটা গোষ্ঠী কোন্দলে জর্জরিত বিজেপি নয়। সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় যুব সমাজের আইকন। তিনি তাঁর নির্বাচনী ক্ষেত্রে করোনা নিয়ন্ত্রণে একটা মডেল তৈরি করেছেন। ওই মডেলকে বিজেপির সাংসদদের রোল মডেল করা উচিত”।

Related Articles

Back to top button