রাজ্য

‘নির্বাচনের আগেই তো আপনারা হেরে বসে আছেন’, ভোটের প্রচার না করায় বিজেপি পুরভোটের প্রার্থীদের তোপ অমিত মালব্যের

“নির্বাচনের আগেই তো আপনারা হেরে বসে আছেন’, হ্যাঁ, এমন ভাষাতেই এদিন বিজেপি পুরভোটের প্রার্থীদের তোপ দাগলেন বিজেপি নেতা অমিত মালব্য। আজ, সোমবার পুরভোট নিয়ে আলোচনা করতে সমস্ত ওয়ার্ডের নেতা ও প্রার্থীদের সঙ্গে একটি বৈঠক করে বিজেপি। সেই বৈঠকেই বিজেপির প্রচারে খামতি নিয়ে প্রশ্ন তোলেন অমিত।

এদিনের এই বৈঠকে বেশ ক্ষুব্ধ হতে দেখা গিয়েছে অমিত মালব্যকে। এদিন তিনি প্রশ্ন তোলেন যে কেন অধিকাংশ ওয়ার্ডে কোনও প্রচার করা হচ্ছে না ও প্রচারে কেন লোক হচ্ছে না। তাঁর অভিযোগ, প্রায় ৯০ শতাংশ প্রার্থীরাই প্রচারে যাচ্ছেন। এর জেরে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের তরফে বিজেপির রাজ্য নেতৃত্ব অমিত মালব্যের রোষের মুখে পড়েন।

এদিন অমিত মালব্য জানান, অধিকাংশ জায়গায়তেই কোনও প্রচার হচ্ছে না। নানান জায়গায় প্রার্থীরা প্রচারে করতে কেন কোন লোক পাচ্ছেন না, বৈঠকে এমন প্রশ্ন তোলেন অমিত মালব্য। তাঁর এই প্রশ্নে বেশ অস্বস্তিতে পড়েন সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা।

ওয়ার্ড ভিত্তিক দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের নিয়ে বিজেপির কেন্দ্রীয় ও রাজ্য নেতৃত্বের এই পুর ভোটের আগে কার্যত দলের করুণ ছবি ধরা পড়েছে। রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে, অধিকাংশ জায়গায় বিজেপির তরফে কোনও ভোটের প্রচার হচ্ছে না।

এই অবস্থায় রাজ্যের বিজেপি নেতাদের তোপ দাগেন অমিত মালব্য। এর পাশাপাশিই তিনি নির্দেশ দেন যাতে মঙ্গলবার থেকেই সকলে জোরকদমে ভোটের প্রচারে নামেন। আগামী দু’তিনদিনের মধ্যে প্রার্থীদের গুরুত্ব বিচার করে প্রথম দফায় এক থেকে দু’লক্ষ টাকা করে দেওয়া হবে বলেও জানানো হয়।

এদিনের এই বৈঠকে এও জানানো যে প্রার্থী হতে না পারার জন্য কিছু নেতার ক্ষোভ প্রশমনে উদ্যোগী হতে হবে। এই কারণে সবাইকে একসঙ্গে নিয়ে কাজ করার কথাও বলা হয়েছে এই বৈঠকে।

প্রসঙ্গত, বিধানসভা ভোটের মতোই পুরভোটেও প্রার্থী হতে না পেরে বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষুব্ধ বিজেপি নেতা ও তাঁদের অনুগামীদের বিক্ষোভ দেখা গিয়েছে। এমনকি টাকা নিয়ে ভোটের টিকিট দেওয়ার মতো গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। এই প্রেক্ষিতে এদিনের এই বৈঠক যে বেশ গুরুত্বপূর্ণ, তা বলাই বাহুল্য।

সোমবারের এই বৈঠকে অমিত মালব্য ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন অমিতাভ চক্রবর্তী, জ্যোতির্ময় সিং মাহাতো, দীনেশ ত্রিবেদী, অগ্নিমত্রা পাল, প্রমুখ। তবে বৈঠকে দেখা মেলেনি অর্জুন সিং, রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতো নেতাদের।

Related Articles

Back to top button