রাজ্য

ভয়ানক দুর্ঘটনার কবলে অনুব্রত মণ্ডলের দেহরক্ষীর গাড়ি, দুমড়ে-মুচড়ে গেল গাড়ি, মৃত্যু দেহরক্ষীর শিশুকন্যা-সহ দু’জনের

ভয়ংকর দুর্ঘটনার মুখে পড়ল বীরভূমের তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের দেহরক্ষীর গাড়ি। পণ্যবোঝাই ডাম্পারের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয় গাড়িটির। এই দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় দেহরক্ষীর শিশুকন্যা-সহ দু’জনের। গাড়িচালকের অবস্থাও আশঙ্কাজনক।

দুর্ঘটনাটি ঘটে গতকাল, মঙ্গলবার রাত ১২টা নাগাদ ইলামবাজারের চৌপাহাড়ি মোড়ে। জানা গিয়েছে, দুর্গাপুর থেকে ইদের কেনাকাটা সেরে দুটি গাড়িতে করে বোলপুরে ফিরছিলেন তৃণমূলের বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের দেহরক্ষী সাইগল হোসেন, তাঁর স্ত্রী, শিশুকন্যা-সহ আরও কয়েকজন।

একটি গাড়িতে ছিলেন দেহরক্ষীর শিশুকন্যা ও তাঁর বন্ধু মাধব কৈবর্ত। আর অন্য একটি গাড়িতে ছিলেন দেহরক্ষী সাইগল হোসেন, তাঁর স্ত্রী ও বড় মেয়ে। প্রথম গাড়িটিই দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। উল্টোদিক থেকে আসা ডাম্পারের ধাক্কায় মৃত্যু হয় তৃণমূল নেতার দেহরক্ষীর শিশুকন্যা ও বন্ধুর। ডাম্পার চালক পলাতক।

উল্লেখ্য, গরুপাচার কাণ্ডে কিছুদিন আগে অনুব্রত মণ্ডলের দেহরক্ষী সাইগল হোসেনকেও তলব করেছিল সিবিআই। অনুব্রত মণ্ডল কোথায় কোথায় যেতেন, কাদের সঙ্গে তাঁর লেনদেন হত, এমন নানান তথ্য সাইগলের কাছে রয়েছে বলে খবর পায় কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। সেই অনুযায়ী হাজিরাও দিয়েছিলেন তিনি।

এই দুর্ঘটনার নেপথ্যে আবার অন্য কারন দেখছে ওয়াকিবহাল মহল। সাইগল হোসেন অনুব্রত মণ্ডলের সর্বক্ষণের সঙ্গী। তিনি কোথায় যাচ্ছেন না যাচ্ছেন, সব খবর থাকে তাঁর কাছে। এই গরুপাচার মামলায় অনুব্রতর নাম জড়ালেও তিনি সিবিআই দফতরে হাজিরা দেন নি। এর আগে বিরোধীরা আশঙ্কা প্রকাশ করেছিল যে অনুব্রতকে হয়ত খুন করা হতে পারে। আর এমন সময় তাঁরই দেহরক্ষীর গাড়িতে এমন দুর্ঘটনা বেশ চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

Related Articles

Back to top button