রাজ্য

দ্রুত ছাড়তে চান সাংসদ পদ কিন্তু স্পিকার সময় দিচ্ছেন না, অভিযোগ তুলে স্পিকারকে দেওয়া চিঠি প্রকাশ করলেন বাবুল সুপ্রিয়

বারবার স্পিকারকে চিঠি দিয়ে সাংসদ পদ ছাড়ার কথা জানিয়েছেন বাবুল সুপ্রিয়। এমনকি স্পিকারের কাছে সময় চেয়েও বারবার আবেদন করেছেন। কিন্তু সময় মিলছে না স্পিকারের দফতর থেকে। এদিকে আবার তিনি কেন এখনও সাংসদ পদ ছাড়ছেন না, এ নিয়ে প্রশ্নও উঠেছে অনেক। এই কারণে এবার উপায় না দেখে নিজের সেই চিঠি প্রকাশ করে তাঁর সাংসদ পদ ছাড়ার বিলম্বের কারণ দেখালেন প্রাক্তন বিজেপি নেতা। এই নিয়ে রাজনৈতিক মহলে বেশ আলোচনা শুরু হয়েছে।

দুই সপ্তাহ আগেই আচমকাই দলবদলের সিদ্ধান্ত নেন বাবুল সুপ্রিয়। তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত থেকে দলীয় পতাকা তুলে নিয়ে ঘাসফুল শিবিরে যোগ দেন তিনি। এরপরও দেখা করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গেও। তিনি জানিয়ে দিয়েছিলেন যে সমস্ত নিয়ম মেনেই তিনি দলবদল করছেন। তিনি সাংসদ পদও ছেড়ে দেবেন বলেও জানান।

সেই অনুযায়ী লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লার কাছে সময় চান বাবুল। তাঁকে চিঠি দিয়ে সাংসদ পদ ছাড়ার কথা জানান। দিল্লি গিয়ে স্পিকারের সঙ্গে দেখা করারও চেষ্টা করেন। কিন্তু স্পিকার ব্যক্তিগত কাজে ব্যস্ত থাকায় বাবুল সুপ্রিয়কে সময় দিতে পারেন নি তিনি। ফলে ইস্তফা না দিয়েই ফিরতে হয় বাবুলকে।

আরও পড়ুন- প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগে ২ বছরে জলের কল পেয়েছে পাঁচ কোটি পরিবার, সচেতনতা বাড়াতে এবার অ্যাপ উদ্বোধন করলেন মোদী

এর মধ্যে বাবুল অবশ্য নিজের সংসদীয় তহবিলের সমস্ত অর্থ খরচের জন্য মঞ্জুর করে দেন। তিনি তাঁর অসমাপ্ত কাজ এখনও সমাপ্ত হয়নি। তিনি এখনও সাংসদ পদ ছেড়ে দিয়ে সম্পূর্ণভাবে তৃণমূল নেতা হতে উঠতে পারেন নি।

আর এর জন্য বাবুল দায়ী করেছেন সাংবিধানিক জটিলতাকেই। তাঁর স্পিকারকে লেখা চিঠি তিনি টুইটে প্রকাশ করে জানান যে তিনি স্পিকারের কাছে একাধিকবার সময় চেয়েছেন। চিঠি লিখে আবেদন জানিয়েছেন। স্পিকার সেই চিঠির প্রাপ্তিস্বীকার করে তাতে সইও করেছেন।

কিন্তু এত কিছু সত্ত্বেও স্পিকার এখনও তাঁকে সময় দিতে পারেননি। এই কারণে স্পিকারের সঙ্গে দেখাও হয়নি তাঁর। এমনকি বাবুল সুপ্রিয়র হয়ে স্পিকার ওম বিড়লাকে চিঠি পাঠিয়েছেন তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়ও। কিন্তু তাতেও ফল মেলেনি। এই কারণেই তাঁর সাংসদ পদে ইস্তফা দিতে দেরি হচ্ছে বলে জানান বাবুল সুপ্রিয়।

Related Articles

Back to top button