রাজ্য

কোমর বেঁধে শুরু নির্বাচনের প্রস্তুতি, তৃণমূলের জালেই তৃণমূল সুপ্রিমোকে ফাঁদে ফেলার কৌশল বিজেপির

বিনা যুদ্ধে এক ইঞ্চিও জমি ছেড়ে দিতে রাজী নয় বিজেপি। মাস চারেক আগে নন্দীগ্রামে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে হারিয়েছিল গেরুয়া শিবির। এবার ফের একবার সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটাতে চাইছে বঙ্গ বিজেপি। আর এই কারণে এখন থেকেই কোমর বেঁধে শুরু নির্বাচনের প্রস্তুতি।

ভবানীপুর কেন্দ্রে উপনির্বাচনের রণনীতি স্থির করতে আজ, শনিবার সকাল থেকেই একাধিক বৈঠক শুরু করে গেরুয়া শিবির। সূত্রের খবর অনুযায়ী, তৃণমূল নেত্রীকে ফের ধাক্কা দিতে নানান কৌশল ঠিক করা হয়েছে গেরুয়া শিবিরের তরফে।

আরও পড়ুন- ‘যতদিন বাঁচবেন নন্দীগ্রামে হারের যন্ত্রণা কানের কাছে বাজবে’, ফের শুভেন্দুর নিশানায় মমতা

বিজেপি সূত্রের খবর, বিধানসভা নির্বাচনে ভবানীপুর কেন্দ্রে যে ওয়ার্ডগুলিতে বিজেপি কম ভোট পেয়েছিল, প্রথমে সেই ওয়ার্ডগুলিকে টার্গেট করা হচ্ছে। সেই ওয়ার্ডগুলিতে বিজেপি নেতা-কর্মী ও প্রার্থী প্রিয়াঙ্কা টিবরেওয়ালকে ঘনঘন যেতে বলা হয়েছে। এছাড়াও পিছিয়ে থাকা ওয়ার্ডের জন্য একটি করে হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ খুলে প্রচার করার কথা চিন্তা করা হয়েছে।

এর সঙ্গেই সংখ্যালঘু অধ্যুষিত এলাকায় সব বুথে দুজন করে এজেন্ট রাখার কথা ভাবা হয়েছে। যাতে বুথে থাকা কোনও এজেন্টকে যদি কেউ ভয় দেখিয়ে তুলে নিয়ে যায়, তাহলে অন্য একজন যাতে সেখানে থাকতে পারে।

এছাড়াও, প্রচারের দিকেও কোনও খামতি রাখতে নারাজ গেরুয়া শিবির। প্রচুর পরিমাণে পোস্টার ও ব্যানার ছাপানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যদি শাসকদলের তরফে বিজেপির পোস্টার-ব্যানার ছিঁড়ে ফেলা হয়, তাহলে যতবার তা ছিঁড়বে, ততবার সেই জায়গায় নতুন পোস্টার যাতে লাগানো হয়, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে বলা হয়েছে।

ভুললে হবে না, ভবানীপুরের বিজেপি প্রার্থী প্রিয়াঙ্কা টিবরেওয়ালকে জেতানোর জন্য যাদের ময়দানে নামানো হয়েছে, তাঁরা একসময় তৃণমূলের বিশ্বস্ত সৈনিক ছিলেন। যেমন প্রিয়াঙ্কার নির্বাচনী এজেন্ট করা হয়েছে সজল ঘোষকে। এদিকে নির্বাচন পরিচালনার জন্য যে কমিটি গঠন করা হয়েছে, তার প্রধান হলেন অর্জুন সিং। তাঁর সঙ্গে সেই কমিটিতে রয়েছেন সৌমিত্র খাঁ-ও। এঁরা সকলেই একদা তৃণমূলের অতি পরিচিত মুখ। ফলে তৃণমূলের জালেই যে তৃণমূল সুপ্রিমোকে জড়ানোর ফন্দি আঁটছে বিজেপি, তা বেশ স্পষ্ট।

আর পড়ুন- প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ৭১তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে মধ্যপ্রদেশে তৈরি হবে ১০৭০টি ‘নমো পার্ক’, জমি দিচ্ছে সরকার

এর ফলে একটা বিষয় ভালোভাবেই বোঝা যাচ্ছে যে ভোটের এই লড়াই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বনাম প্রিয়াঙ্কা টিবরেওয়াল হলেও, বিজেপি প্রার্থীর তরফে এই ভোটযুদ্ধের স্টিয়ারিং অন্য কারোর হাতেই। আর এভাবেই মমতাকে দ্বিতীয়বার পর্যুদস্ত করতে উদ্যত বিজেপি। এই সেয়ানে-সেয়ানে টক্করে শেষ হাসি কে হাসে, সেটাই এখন দেখার।

Related Articles

Back to top button