রাজ্য

বিধানসভার সামনে চা, ঝালমুড়ি, ঘুগনি বিক্রি করে প্রতিবাদ জানালেন বিজেপি বিধায়করা, মমতার মন্তব্যের তীব্র কটাক্ষ বিধায়কদের

কিছুদিন আগেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Mamata Banerjee) এক মন্তব্য নিয়ে বেশ বিতর্ক তৈরি হয় রাজবনইতিক মহলে (politics)। যুব সমাজকে উপার্জনের জন্য চা, ঝালমুড়ি, ঘুগনি বিক্রি করার নিদান দিয়েছিলেন তিনি। এবার তাঁর সেই মন্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে বিধানসভার সামনেই এসব বিক্রি করলেন বিজেপি বিধায়করা (BJP MLA)।

যুবসমাজকে বার্তা দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন যে সকলকে খেটে খেতে হবে। এক সভা থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “এক হাজার টাকা জোগাড় করে একটা কেটলি কিনুন আর মাটির ভাঁড় নিন। সঙ্গে কিছু বিস্কুট নিন। আস্তে আস্তে বাড়বে”। আয় বাড়ানোর উপায়ও বাতলে দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী নিজেই। বলেছিলেন, “প্রথম সপ্তাহে বিস্কুট নিলেন। তার পরের সপ্তাহে মাকে বললেন, একটু ঘুগনি তৈরি করে দাও। তার পরের সপ্তাহে একটু তেলেভাজা করলেন। একটা টুল আর একটা টেবিল নিয়ে বসলেন। এই তো পুজো আসছে সামনে। দেখবেন লোককে দিয়ে কুলোতে পারবেন না! আজকাল এত বিক্রি আছে”।

এখানেই শেষ নয়, মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেছিলেন, “‌পুজোয় ঘুরবেনও সঙ্গে একটা কৌটো নিয়ে যান। একটু বাদাম দিয়ে দিন, একটু ছোলা দিয়ে দিন। দেখবেন দারুণ বিক্রি হবে”।

মুখ্যমন্ত্রীর সেই মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা করা হয়েছে বিজেপির তরফে। তাদের কথায়, ‘দিদি’র আত্মীয়রা কোটি কোটি টাকার মালিকানা নিয়ে বসে থাকবেন, আর রাজ্যের শিক্ষিত যুবক-যুবতীরা ফুটপাতে বসে চা, ঘুগনি বিক্রি করবে? এদিন বিধানসভায় প্রতিবাদ জানানোর সময় বিজেপি বিধায়কদের গলায় ঝোলানো ছিল প্ল্যাকার্ড। তাতে লেখা ছিল, “আমার খোকা লুটবে বঙ্গ, করবে দেদার চুরি/‌ তোমার খোকা বেচবে পুজোয় ঘুগনি–ঝালমুড়ি”।

এদিন বিধানসভায় এই প্রতিবাদে সামিল হয়েছিলেন বঙ্কিম ঘোষ, মনোজ টিগগা-সহ একাধিক বিজেপি বিধায়ক। এদিন বঙ্কিম ঘোষ বলেন, “‌চা, চপ, মুড়ি বিক্রি করে কোটিপতি হওয়া যায়, একথা বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। শুধু রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ও তাঁর পরিবারের সবাই কোটিপতি হবেন তা হয় না। আমাদেরও ইচ্ছে হয় কোটিপতি হতে। তাই আমরা ওঁর পরামর্শ মেনে এসব বিক্রি করছি। রাজ্যের যুব সমাজকেও বলছি চা ঘুগনি বিক্রি করে কোটিপতি হতে”।

Related Articles

Back to top button