সব খবর সবার আগে।

ফের উত্তপ্ত পাহাড়, উঠল উত্তরবঙ্গকে ভাগ করে পৃথক ‘গোর্খাল্যান্ড’-এর দাবী, নাড্ডাকে চিঠি বিজেপি বিধায়কের

শীতের মরশুম শুরু হলেও একাধিক ইস্যু নিয়ে কিন্তু বারবার উত্তপ্ত হচ্ছে পাহাড়। ফের উঠল উত্তরবঙ্গকে ভাগ করে পৃথক রাজ্য গড়ার দাবী। এবার এই দাবী তুললেন কার্শিয়াং-এর বিজেপি বিধায়ক বিষ্ণুপ্রসাদ শর্মা।

পাহাড়বাসীর উন্নয়নের জন্য আলাদা গোর্খাল্যান্ড হওয়া প্রয়োজন, এমন দাবী জানিয়ে এবার বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডাকে চিঠি লিখলেন বিষ্ণুপ্রসাদ শর্মা। এই বিষয়ে নাড্ডার হস্তক্ষেপের দাবী জানিয়েছেন তিনি। এর পাশাপাশি পাহাড়ে এইমস গড়ার ও রাজ্য সরকারের রেশন পৌঁছে দেওয়ার দাবীও তোলেন তিনি।

সোমবার জেপি নাড্ডাকে দেওয়া চিঠিতে বিজেপি বিধায়ক জানান যে পাহাড়ের মানুষ বিজেপিকে ভোট দিয়েছে। ২০১৯-এর নির্বাচনের পর পাহাড় থেকে ৩ জন সাংসদ রয়েছেন। ডুয়ার্স থেকেও বিজেপি ভালো ফল করেছে। তাই পাহাড়ের মানুষের উন্নয়নের দিকে নজর দেওয়া বিজেপির কর্তব্য।

কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে তিনি দাবী জানিয়েছেন উত্তরবঙ্গকে ভাগ করে পৃথক গোর্খাল্যান্ড গড়ে তোলার। তাঁর অভিযোগ, পাহাড়ের মানুষ দীর্ঘদিন ধরে প্রাপ্য অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়ে আসছে। রাজ্য সরকারের অভ্যন্তরীণ রাজনীতির জেরেই এমনটা হচ্ছে বলে  দাবী বিজেপি বিধায়কের।

কিছুমাস আগে আলিপুরদুয়ারের বিজেপি সাংসদ জন বার্লা পৃথক রাজ্যের দাবী জানিয়ে সুর ছড়িয়েছিলেন। তাঁর দাবী ছিল, উত্তরবঙ্গে কোনও উন্নয়ন হয়নি। আর উত্তরবঙ্গের মানুষেরও নাকি দাবী আলাদা গোর্খাল্যান্ড হোক। সেই সময় এমন দাবী জানিয়ে বিরোধিতার মুখে পড়েছিলেন জন বার্লা। তবে বিজেপির তৎকালীন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ কিন্তু এই বিষয়ে সায় দেন নি। অনেকেই অখণ্ড বাংলার পক্ষেই মত দেন।

সেই সময় এই বিষয়টি খানিকটা থিতিয়ে পড়লেও, ফের একবার অন্য এক বিজেপি সাংসদ সে একই ইস্যুতে ধোঁয়া দিলেন। একদিকে যখন বিমল গুরুং-রোশন গিরির মতো দার্জিলিংয়ের প্রভাবশালী নেতারা পাহাড়ে রাজনৈতিক সমাধানের জন্য মন্ত্রীদের দুয়ারে দুয়ারে ঘুরছেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও যখন নিজে পাহাড়ে গিয়ে জিটিএ  নির্বাচনের মাধ্যমে পাহাড়ের উন্নয়নের আশ্বাস দিচ্ছেন, সেই মুহূর্তে বিজেপি বিধায়কের এমন দাবীতে মুখ্যমন্ত্রীর সেই প্রক্রিয়ায় খানিকটা আঘাত হানবে বলেই ওয়াকিবহাল মহলের মত।

You might also like
Comments
Loading...