রাজ্য

বগটুই গণহত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে রাস্তায় নামছে গেরুয়া শিবির, সোমবার কলকাতায় মহামিছিল বিজেপির

আগামী সোমবার কলকাতার ওয়েলিংটন থেকে রানী রাসমনি অ্যাভিনিউ পর্যন্ত মিছিলের ডাক দিল বিজেপি। রামপুরহাটের বগটুই গণহত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে এই মিছিল। এদিকে, এদিনই আবার রয়েছে বামেদের ধর্মঘট। দুই রাজনৈতিক দলের এমন কর্মসূচির জেরে সপ্তাহের প্রথমদিনেই যে কলকাতার রাস্তা বেশ উত্তপ্ত হবে, তা বলাই বাহুল্য।

এখনও পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুযায়ী, এই মিছিলে সমস্ত বিজেপি বিধায়কদের থাকতে বলা হয়েছে। বিজেপির রাজ্য স্তরের যেসব নেতারা রয়েছেন, তারাও যোগ দেবেন এই মিছিলে। বিজেপি সূত্রের খবর, মূলত সাতটি বিধানসভা কেন্দ্র থেকে লোকজন এই মিছিলে পা মেলাবেন। উত্তর কলকাতা, দক্ষিণ কলকাতায় বিজেপির যে সংগঠন রয়েছে, তারা তো মিছিলে অংশ নেবেনই, এছাড়াও আশেপাশের বিধানসভা এলাকা থেকেও লোক আনা হবে বলে জানা যাচ্ছে।

রামপুরহাটের বগটুইয়ের গণহত্যাকাণ্ডকে সামনে রেখেই এই প্রতিবাদে সরব হতে চলেছে বিজেপি। এই ঘটনায় কেন্দ্রীয় হস্তক্ষেপের দাবী, রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিতে কেন্দ্রের রাশ টানার দাবী, এসব কিছুই হবে মিছিলের অংশ।

এদিনই বনধ ডেকেছে বামেদের শ্রমিক সংগঠনগুলিও। আর ওয়াকিবহাল মহলের মতে, বামেদের সেই ধর্মঘটকে বানচাল করাও এই মিছিলের লক্ষ্য। যদিও বিজেপির দাবী, “বামেদের ডাকা ধর্মঘটের থেকে রামপুরহাট কান্ডের গুরুত্ব অনেক বেশি। যদি ওরা ধর্মঘট সফল করতে পারে, তাহলে তো এমনিতেই বিজেপির মিছিলে লোক হবে না। তাহলে এত ভাবনা কেন”।

আজ, শনিবারই বিজেপি বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারীর নেতৃত্বে রামপুরহাট এসডিপিও কার্যালয়ের সামনে অবস্থান বিক্ষোভ করা হয় বিজেপির তরফে। সেখান থেকেই শুভেন্দু বলেন যে ২১শে মার্চের ঘটনা গোটা দেশজুড়ে আলোচিত হচ্ছে।

তাঁর কথায়, “যেভাবে মহিলা, শিশুদের পুড়িয়ে মারা হয়েছে, তা অত্যন্ত লজ্জার। এ রাজ্যে প্রচুর বোমা, বারুদ, বন্দুক ছড়িয়ে রয়েছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তাঁর দল রাজ্যকে সন্ত্রাসের আঁতুরঘরে পরিণত করেছে। রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা একেবারে তলানিতে চলে গিয়েছে”।

Related Articles

Back to top button