সব খবর সবার আগে।

২৮, ২৯, ৩০ চলবে না বাস! ৭২ ঘন্টা ধর্মঘটের ডাক বাস মালিক সংগঠনের, চরম দুর্ভোগে পড়তে চলেছেন নিত্যযাত্রীরা

ফের বাংলায় বাস ধর্মঘট। ৭২ ঘন্টা চরম দুর্ভোগের মুখোমুখি হতে চলেছেন নিত্যযাত্রীরা। আন্দোলনের হুঁশিয়ারি আগেই ছিল। এবার তা পূরণের পালা বেসরকারি বাস-মিনিবাস মালিকদের।

২৮, ২৯ ও ৩০ জানুয়ারি, টানা তিনদিন একযোগে ধর্মঘটের ডাক দিল বাস মালিকদের পাঁচটি সংগঠন। যদি এই ধর্মঘট রাজ্য সরকারের মধ্যস্থতার ফলে শান্ত হয় তবে ভালো নয়তো তীব্র চাঞ্চল্য হতে চলেছে বাংলায়।

প্রসঙ্গত, করোনার জেরে হ‌ওয়া লকডাউন পরবর্তী অবস্থাকে কাটিয়ে উঠে এখন স্বাভাবিক ছন্দে ফিরছে বাংলা সহ পুরো দেশ। নিত্যযাত্রীদের অপরিহার্য যানবাহনগুলো রাস্তায় নেমেছে। কিন্তু এরপর থেকেই অসুবিধায় পড়েছে বেসরকারি বাস ও মিনিবাসগুলি। ন্যূনতম ভাড়া দ্বিগুণ না করলে আর পরিষেবা দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। অন্তত তেমনই দাবি বাস মালিকদের। কেন? বাসমালিক সংগঠনগুলির তরফে জানানো হয়েছে, GST-র কারণে ডিজেলের দাম মাত্রা ছাড়িয়েছে। তাই ন্যূনতম ৭ টাকা ভাড়ায় বাস চালালে মুনাফা বলে কিছু তাঁরা চোখেই দেখতে পাচ্ছেন না।

উল্লেখ্য,বাস ভাড়া বৃদ্ধি নিয়ে ৩০শে ডিসেম্বর জরুরি বৈঠক হয় বাস ও মিনিবাস সংগঠনগুলির। সেই বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, বাসের ন্যূনতম ভাড়া ৭ টাকা থেকে বাড়িয়ে দ্বিগুণ করতে হবে। অর্থাৎ বাস উঠলেই দিতে হবে ১৪ টাকা।

এই বিষয়ে সরকারকে হুশিয়ারি দিতেও পিছপা হননি বাস মালিকরা। তাঁদের তরফ থেকে গঙ্গাসাগর মেলা পর্যন্ত সময়সীমাও বেঁধে দেওয়া হয়। এরপর বাস মালিকদের আলোচনার বসার আশ্বাস দেন তৃণমূল নেতা মদন মিত্র।

নেতা জানিয়েছেন, মুখ্যমন্ত্রী নিজে আশ্বাস দিয়েছেন বিষয়টি দেখবেন। কিন্তু ভোটের আবহে শেষপর্যন্ত বৈঠক আর হয়নি। এই পরিস্থিতিতে যেমনটা হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন, ঠিক তেমনটাই করলেন বাস মালিকরা। টানা ৩ দিন বেসরকারি বাস ও মিনিবাস বন্ধ থাকলে, চরম ভোগান্তিতে পড়তে হবে। এই ধর্মঘটের পরিপ্রেক্ষিতে পরিবহন দফতর কি সিদ্ধান্ত নেয় এখন সেটাই দেখার!

 

You might also like
Comments
Loading...