রাজ্য

পুরভোটের সমস্ত বুথে মোতায়েন করতে হবে সিসিটিভি, নির্দেশ কলকাতা হাইকোর্টের

আগামী ১৯শে ডিসেম্বর কলকাতায় পুরভোট রয়েছে। এই পুরভোট নিয়ে একাধিক মামলা চলছে। আজ, মঙ্গলবার একটি মামলার শুনানি ছিল কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্তবের ডিভিশন বেঞ্চে। এই শুনানিতে হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি নির্দেশ দেন যে পুরভোটের সমস্ত বুথে সিসিটিভি মোতায়েন করতে হবে। একুশের বিধানসভা নির্বাচনের সময় যে অশান্তি হয়েছে, সেকথা মাথায় রেখেই এমন নির্দেশ দিল আদালত। রাজ্য নির্বাচন কমিশনের তরফে এ বিষয়ে কোনও আপত্তি জানানো হয়নি।

পুরভোটে এবার বুথের সংখ্যা বেড়েছে। প্রায় ১৫০০ বুথে হবে ভোটগ্রহণ। বিজেপি নেতা দেবদত্ত মাঝি আবেদন জানিয়েছিলেন যে সেই সমস্ত বুথে সিসিটিভির প্রয়োজন রয়েছে। তাঁর বক্তব্য, একুশের বিধানসভা নির্বাচনেও হিংসার ঘটনা ঘটেছে। ভোটের দিন যাই হোক না কেন, পরে আদালতে যেতে হলে আর কোনও প্রমাণ পাওয়া যায় না। তখন এই ফুটেজগুলি গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে বলে আবেদনে উল্লেখ করেন তিনি। এই আর্জিতেই বিজেপি নেতা দেবদত্ত মাঝি মামলা করেছিলেন।

কমিশনের তরফে জানানো হয় যে নানান স্পর্শকাতর বুথে ইতিমধ্যেই সিসিটিভি বসানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। ২০ শতাংশ বুত্রহে আগেই সিসিটিভি বসানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। তাই আদালতে কমিশন জানায় যে সিসিটিভি বসানো নিয়ে তাদের কোনও আপত্তি নেই। এরপরই সমস্ত বুথে সিসিটিভি লাগানোর নির্দেশ দেন বিচারপতি।

এদিকে আবার রাজ্যের সমস্ত পুরসভায় যাতে একসঙ্গে ভোট হয়, তা দাবী করে জনস্বার্থ মামলা করে বিজেপি। এছাড়াও, রাজ্যের পুরভোটে ইভিএমের সঙ্গে ভিভিপ্যাট রাখার দাবীও জানানো হয়। রাজ্যে পুরসভা ও পুরনিগম রয়েছে ১২৫টি। এর মধ্যে পুরসভা ১১৮টি ও পুরনিগম ৭টি।

পুরভোট নিয়ে এর আগে দু’জন মামলা করেছিলেন। তাদের মধ্যে একজনের বক্তব্য ছিল যে পুরভোট যাতে একসঙ্গে হয়। তা যদি নাও হয়, তাহলে যাতে একসঙ্গে গণনা হয়, সে ব্যবস্থাও করা যেতে পারে।

আর অন্য এক মামলাকারী মৌসুমি রায়ের দাবী ছিল অনেকদিন আগেই পুরবোর্ডের মেয়াদ পেরিয়েছে। সেই পুরসভাগুলিতে কবে ভোট হবে, তা যেন রাজ্য জানায়। শুনানির পর সোমবার রায়দানের কথা ছিল। কিন্তু এদিন বিজেপির তরফে জানানো হয় যে মামলার যে শুনানি চলছে, এর উপর ভিত্তি করে তারা আরও একটি জবাব দিতে চায়। আদালত সেই মামলার রায় এখনও দেয়নি।

Related Articles

Back to top button