সব খবর সবার আগে।

‘বাকী কেন্দ্রের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার কী ভবানীপুরের মানুষের থেকে কম?’, আদালতের তোপে মুখ পুড়ল কমিশনের

ভবানীপুর উপনির্বাচন নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে দায়ের করা হয়েছিল মামলা। শুক্রবার সেই মামলার শুনানি ছিল। এদিনের এই শুনানিতে নির্বাচন কমিশনকে বেশ ধমক দিল আদালত। আদালতের তোপের মুখে পড়ে মুখ পোড়ে কমিশনের। এই মামলার রায়দান আপাতত স্থগিত রাখা হয়েছে।

আজ, শুক্রবার এই মামলার শুনানি হয় কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি রাজর্ষি ভরদ্বাজ ও রাজেশ বিন্দালের বেঞ্চে। তাঁরা স্পষ্ট জানান, কমিশন যে হলফনামায় জমা করেছেম তাতে তাঁরা মোটেও সন্তুষ্ট নন। কমিশনের আইনজীবীকে তারা সরাসরি প্রশ্ন করেন, “কোনও একটি নির্দিষ্ট কেন্দ্রের নির্বাচন বা উপনির্বাচন করানোর সুপারিশ করার অধিকার কী কোনও রাজ্যের মুখ্য সচিবের কাছে রয়েছে”?

কমিশনের আইনজীবীকে বিচারপতিরা প্রশ্ন করেন, “মুখ্যসচিব কমিশনকে নির্বাচনের জন্য সুপারিশ করে যেই চিঠি লিখেছিলেন, তাতে মুখ্যসচিবের ভূমিকা কী? চিঠিতে উনি যেই সাংবিধানিক সঙ্কটের কথা উল্লেখ করেছেন, তাঁর বাস্তবতা কী”?

কমিশনের আইনজীবী এই বিষয়ে বলেন যে নির্বাচনের কাছে সুপারিশ করে কোনও অসাংবিধানিক কাজ করেন নি। এরপরই আদালত প্রশ্ন করে যে শুধুমাত্র একটি মাত্র কেন্দ্রের জন্যই কেন সুপারিশ করা হল? বাকী কেন্দ্র কী দোষ করেছে? আদালত জানতে চায় যে বাকী কেন্দ্রগুলির মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার কী ভবানীপুর কেন্দ্রের থেকে কোনও অংশে কম?

শুধু তাই-ই নয়, এদিন এর পাশাপাশি ভবানীপুর কেন্দ্র থেকে ইস্তফা দেওয়া রাজ্যের কৃষিমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়কেও তোপ দাগে আদালত। আদালতের কথায়, জনগণের ভোটে তিনি জয়ী হয়েছেন, তাহলে ইস্তফা দিলেন কেন? একটি কেন্দ্রে ভোট হতে গেলে অনেক খরচ হয়। সেই টাকা কিন্তু জনগণেরই, তাও মনে করিয়ে দেয় আদালত।

_taboola.push({mode:'thumbnails-a', container:'taboola-below-article', placement:'below-article', target_type: 'mix'}); window._taboola = window._taboola || []; _taboola.push({mode:'thumbnails-rr', container:'taboola-below-article-second', placement:'below-article-2nd', target_type: 'mix'});
You might also like
Comments
Loading...