রাজ্য

“যেনতেন প্রকারেণ বাংলা দখল করতে হবে! তার পরই লকডাউন করবে ওঁরা”, কেন্দ্রকে বিঁধে দাবি অভিষেকের

বিদ্যুৎ বেগে বাড়ছে করোনার প্রকোপ। ভেঙে পড়ার মুখে স্বাস্থ্য ব্যবস্থা। মারণ ভাইরাসের দ্বিতীয় ধাক্কায় বেসামাল গোটা দেশ। আমজনতার মনে এখন একটাই প্রশ্ন, বাংলায় নির্বাচনে শেষ হলেই পরিস্থিতি সামাল দিতে ফের কি লকডাউন ঘোষণা করবে কেন্দ্র?

আর এবার নির্বাচনী প্রচারসভা থেকে সেই লকডাউন নিয়েই সতর্ক করলেন যুব তৃণমূল সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন-করোনা সংক্রমণের জেরে কি বাতিল হচ্ছে দূরপাল্লার ট্রেন? কি জানাচ্ছে ভারতীয় রেল? পড়ুন-

আজ অর্থাৎ মঙ্গলবার নির্বাচনী প্রচারে মুর্শিদাবাদের লালগোলায় সভা করেন‌ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাইপো। সেই সভা থেকে এদিন একাধিক ইস্যুতে কেন্দ্রকে কটাক্ষ করেন তিনি, লকডাউন নিয়েও সতর্ক করেন বঙ্গবাসীকে। বললেন, “ভোটের পরই দেশজুড়ে হবে লকডাউন। শুধুমাত্র ভোটের অপেক্ষায় বসে আছে কেন্দ্র। আগে যেনতেন প্রকারেণ বাংলা দখল করবে। তার পরই লকডাউন করবে ওঁরা।”

সেইসঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সুরে সুর মিলিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ্কেও এদিন বাক্যবাণে বিদ্ধ করেন তিনি। দাবি করেন তাঁর পদত্যাগ।

অভিষেকের কথায়, “উনি ভোটের প্রচারে এসে বারবার বলছেন, রাজ্যে বেআইনি অনুপ্রবেশ ঘটছে। সীমান্তের নিরাপত্তার দায়িত্ব কার? আন্তর্জাতিক সীমান্ত সামলান বিএসএফরা। তাঁরা তো স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের নিয়ন্ত্রণাধীন। তাহলে বেআইনি অনুপ্রবেশ হলে দোষ কার? এই ইস্যুতে তো আপনার ইস্তফা দেওয়া উচিৎ।” সামনেই মুর্শিদাবাদে নির্বাচন। তাঁর আগে এলাকার সাংসদ অধীররঞ্জন চৌধুরীকেও বিঁধলেন অভিষেক।

আরও পড়ুন-সাবধান! করোনা থেকে সেরে ওঠার ১০২ দিন পর ফের আক্রান্ত হতে পারেন করোনায়, দাবি গবেষণায়

সভামঞ্চ থেকে অধীরকে কটাক্ষ অভিষেকের, “গ্যাসের দাম ৯০০ টাকা। সরষের তেলের দাম বাড়ছে। প্ল্যাটফর্ম টিকিটের দাম আকাশছোঁয়া। একবারও সংসদে দাঁড়িয়ে এগুলোর প্রতিবাদ করেননি অধীর চৌধুরী। কারণ, কংগ্রেস বিজেপির সবচেয়ে বড় সাগরেদ। কংগ্রেসকে ভোট দেওয়া মানে বিজেপির হাত শক্তিশালি করা”

Related Articles

Back to top button