সব খবর সবার আগে।

অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় করোনায় আক্রান্ত, সদ্যোজাত কোলে সুস্থ হয়ে হাসিমুখে বাড়ি ফিরলেন মা

সন্তান কোলে যুদ্ধজয়ের গল্প যেন। করোনা আক্রান্ত অবস্থায় প্রসব করেছিলেন পুত্রসন্তানের। আতঙ্কিত ছিলেন পরিবার থেকে ডাক্তার সবাই। কিন্তু দ্বিতীয় রিপোর্টে জানা গেল, মা-ছেলে করোনা নেগেটিভ। রিপোর্ট আসার পরেই আনন্দের ঝড় বয়ে গেল হাওড়ার উলুবেড়িয়ার ওই বেসরকারি হাসপাতালে। এরপর রাজকীয় অভ্যর্থনায় ছেলে কোলে বাড়ি ফিরলেন মা।

সপ্তাহ দুয়েক আগে বেলিলিয়াস রোডের বাসিন্দা ওই মহিলা অসুস্থ হয়ে পড়ায় ভর্তি করা হয় উলুবেড়িয়ার ফুলেশ্বরের বেসরকারি হাসপাতালে। রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পর জানা যায় করোনা আক্রান্ত তিনি। শুরু হয় চিকিৎসা। সাতদিন পর সুস্থ পুত্রসন্তানের জন্মও দেন তিনি। দ্বিতীয়বার পরীক্ষা করা হয় মহিলা এবং সদ্যোজাতের। তবে ওই রিপোর্ট হাতে আসার পর জানা যায় করোনামুক্ত তাঁরা। মহিলাকে শুক্রবার হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়। রবীন্দ্র সংগীত গেয়ে, হাততালি দিয়ে বাড়ি পাঠানো হল ওই মহিলাকে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, গত ১৩ই এপ্রিল করোনা পজিটিভ হয় তাঁরা। তাঁকে ফুলেশ্বরের এক বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি করা হয়। শুরু হয় চিকিৎসা। দিনসাতেক পর ২০শে এপ্রিল ওই মহিলার প্রসব বেদনা শুরু হয়। চিকিৎসকদের তৎপরতায় পুত্রসন্তানের জন্ম দেন ওই মহিলা। তারপর হাসপাতালেই ছিলেন মা এবং সদ্যোজাত। আবারও পরীক্ষা করা হয় দু’জনের। তাতেই দু’জনের রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। এরপর শুক্রবার দু’জনকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

তারপর এল রাজকীয় বিদায়ের পালা। হাসপাতালের গ্রাউন্ড ফ্লোরে লাইনে দাঁড়িয়ে হাততালি দিচ্ছেন হাওড়ার জেলা শাসক মুক্তা আর্য, গ্রামীণ এলাকার পুলিশ সুপার সৌম্য রায়, মহকুমা শাসক তুষার সিংলা, উলুবেড়িয়া দক্ষিণ কেন্দ্রের বিধায়ক তথা হাওড়ার গ্রামীণ এলাকার তৃণমূলের সভাপতি পুলক রায়। এছাড়া রয়েছেন চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্য কর্মীরা। হাততালি দিচ্ছেন সকলেই। সঙ্গে আবেগভরা কন্ঠ গেয়ে উঠছে রবীন্দ্র সংগীত, “তরীখানি বাইতে গেলে মাঝে মাঝে তুফান মেলে, মরার আগে মরব না।” সঙ্গে পুষ্পবৃষ্টি। মায়ের চোখে তখন আবেগে চোখে জল, মুখে যুদ্ধজয়ের হাসি।

_taboola.push({mode:'thumbnails-a', container:'taboola-below-article', placement:'below-article', target_type: 'mix'}); window._taboola = window._taboola || []; _taboola.push({mode:'thumbnails-rr', container:'taboola-below-article-second', placement:'below-article-2nd', target_type: 'mix'});
You might also like
Comments
Loading...