রাজ্য

‘আমি তো বাংলার দায়িত্বে নেই, এবার ৪০ শতাংশ ভোট পেয়ে দেখালে মেনে নেব’, নাম না করে সুকান্ত-শুভেন্দুকে ওপেন চ্যালেঞ্জ দিলীপের

আটটি রাজ্যের সংগঠনের দায়িত্ব পেয়েছেন তিনি। তাঁকে নিয়ে যে রাজ্য বিজেপির (BJP) মধ্যে চর্চা শুরু হয়েছে, তা কারোর অজানা নয়। এবার নাম না নিয়েই সুকান্ত মজুমদার (Sukanta Majumdar) ও শুভেন্দু অধিকারীকে (Suvendu Adhikari) নিশানা করে দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh) বলেন, “ওদের ইচ্ছা পূর্ণ হয়েছে। আমি তো বাংলার দায়িত্বে নেই। এবার পার্টিটাকে জিতিয়ে দেখান। ৪০ শতাংশ ভোট পেয়ে দেখান”।

এর পাশাপাশি, দলের মধ্যে তাঁর সমালোচকদের কড়া ভাষায় আক্রমণও করেন তিনি। বলেই দেন, “৪০ শতাংশ ভোট পেয়ে দেখালে ওঁদের কথা মেনে নেব। না হলে ভাবব ওঁরাই সেটিং করেছেন তৃণমূলের সঙ্গে বিজেপিকে ড্যামেজ করার জন্য। বিজেপি বেড়েছে তাতে তৃণমূল-সিপিএমের যা কষ্ট হয়েছে, আমাদের পার্টির অনেক লোকেরও কষ্ট হয়েছে”।

দিলীপ ঘোষের হাত ধরেই যে বঙ্গ বিজেপির নির্বাচনী উত্থান হয়েছে তা মোটেই অস্বীকার করা যায় না। কিন্তু তাঁকে নিয়েই এখন দলের মধ্যে নানান চর্চা। ওয়াকিবহাল মহলের মতে, তাঁকে অন্য সরানোর পিছনে দলের ক্ষমতাসীন নেতৃত্বের হাত রয়েছে। আর তা নিয়েই গতকাল, শুক্রবার কারোর নাম না করেই একের পর এক তোপ দাগেন দিলীপ ঘোষ।  

এমন পরিস্থিতিতে তাঁর পাশে দাঁড়িয়েছেন সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়। লকেট বলেন, “দিলীপ ঘোষ বাংলার নেতা, বাংলাতেই থাকবেন। আমাকেও উত্তরাখণ্ডের দায়িত্ব দিয়েছিল দল। তেমনই আটটি রাজ্যের বুথ সশক্তিকরণের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে দিলীপ ঘোষকে। এটা আমাদের গর্বের বিষয়। সেই কাজ হয়ে গেলে দিলীপদা যেমন বাংলার আনাচে কানাচে ঘোরেন তেমনই ঘুরবেন”।

রাজ্য বিজেপির নতুন নেতাদের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছিলেন দিলীপ। সুকান্তের অভিজ্ঞতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন তিনি। তাই তাঁর মতে, দলের পুরনো নেতাদের পক্ষে কথা বলার জন্যই নব্য ক্ষমতাসীন নেতাদের চক্ষুশূল হয়েছেন তিনি। এমনকি, ক্ষমতাসীন নেতারা তাঁর নামে দিল্লিতে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছেও অভিযোগ করেছেন বলে খবর।

এই প্রসঙ্গে দিলীপের জবাব চোখে চোখ রেখে লড়াইটা করেন। তাঁর কথায়,কেউ বললেই তিনি পালটে যাবেন বলে যাঁদের ধারণা, তাঁরা সেই ধারণা পালটে ফেলতে পারেন। দলের সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি দিলীপ ঘোষের দাবী, “আমি যদি ভুল থাকতাম তাহলে পার্টি এগোত না”।

যাঁরা তাঁর সমালোচনা করেন তাদের মধ্যে রয়েছেন তথাগত রায় বা আরও অনেক নব্য নেতা। এদিন তাঁদের নাম না করেই দিলীপ বলেন, “ওইসব লোকেদের কোনও যোগ্যতা নেই। তাদের পাত্তা দিই না। নাম মুখে নিই না। এরা পার্টিকে কী দিয়েছে”।

Related Articles

Back to top button