রাজ্য

‘তৃণমূলে তো একজনই পুরুষ আছেন, বাকি সবাই মহিলা’, বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে ফের চর্চার কেন্দ্রবিন্দুতে দিলীপ

বিজেপিতে মহিলাদের স্থান নিয়ে সমালোচনা করেন তৃণমূল নেত্রী সায়নী ঘোষ। সেই সমালোচনার পাল্টা জবাব দিয়েই বিজেপির প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, “তৃণমূলে একজনই পুরুষ রয়েছে, বাকি সব মহিলা”। দিলীপ ঘোষের এমন মন্তব্যের জেরে নতুন করে বিতর্ক তৈরি হল।

বিতর্কের সূত্রপাত তৃণমূল যুব নেত্রী সায়নী ঘোষের একটি মন্তব্যকে ঘিরে। অভিনেত্রী শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায় বিজেপি ত্যাগ করায় গতকাল সায়নী বলেন, “কোনও মহিলার পক্ষেই বিজেপিতে থাকা সম্ভব নয়৷ বিজেপি নারীবিদ্বেষী দল”।

এরপর আজ, শুক্রবার ইকো পার্কে প্রাতঃভ্রমণের পর দিলীপ ঘোষকে শ্রাবন্তীর বিজেপি ত্যাগ করার বিষয়ে প্রশ্ন করা হয়। সেই সূত্র ধরেই আসে সায়নীর মন্তব্য। সেই সময় দিলীপ ঘোষ বলেন, “সায়নী ঘোষ নিজেকে কী মনে করেন”?

দিলীপ ঘোষের কথায়, “প্রথম মহিলা প্রতিরক্ষামন্ত্রী বিদেশ মন্ত্রী আমরা করেছি। চারজন মহিলা রাজ্যপাল আমরা করেছি। টিএমসিতে একজনই পুরুষ আছে, বাকি সব মহিলা”। সায়নীর মন্তব্যকে টেনে দিলীপবাবুর জবাব, “তৃণমূলে একজনই পুরুষ আছেন। বাকি সবাই মহিলা”।

দিলীপ ঘোষের এই মন্তব্যকে ঘিরে স্বাভাবিকভাবেই বেশ বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। একজন পুরুষ বলতে তিনিও আদতে কাকে বোঝাতে চেয়েছেন, তা তো বেশ স্পষ্ট। কিন্তু এমন মন্তব্য করে তৃণমূলকে ছোটো করতে গিয়ে যে তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শক্তিকে কার্যত স্বীকার করে নিচ্ছেন, তা বোধ হয় বিজেপি নেতা বুঝতে পারলেন না।

এদিন শ্রাবন্তীর বিজেপি ছাড়া নিয়েও মন্তব্য করেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি। নানান তারকাদের রাজনীতিতে যোগ দেওয়ার প্রসঙ্গে দিলীপের মন্তব্য, “এদের কত দিন রাস্তায় দেখা যায়! এদের কখনও রাস্তায় দেখেছেন? কার্যকর্তারা রাস্তায় মার খাচ্ছেন… এটা হচ্ছে রাজনীতি। কেউ ভাবে বাড়ি বসে থাকব, মালা চড়াবে এটা হয় না। লকেটও তো সিনেমায় ছিল। তিনি পার্টিতে এসেছেন লড়াই করেছেন, দল গুরুত্ব দিয়েছে। নেত্রী হয়েছেন। লোক কেন ভোট দেবেন? যারা করছেন তাদের ভোট দিচ্ছেন।”

তিনি আরও বলেন, “তৃণমূল নেতাদের অনুষ্ঠানে যাচ্ছেন কারণ ওখানে গেলে কাজ পাওয়া যায়। যাঁরা যাচ্ছেন কারণ তাঁদের কোনও সিনেমায় অভিনয় করতে দেওয়া হয় না। তাই চলে যাচ্ছে”।

Related Articles

Back to top button