সব খবর সবার আগে।

উচ্চমাধ্যমিকে এত পড়ুয়াকে কেন ফেল করানো হল, জবাব চেয়ে মহুয়া দাসকে চিঠি দিল সরকার

নানান জেলাতেই একাধিক পড়ুয়া উচ্চমাধ্যমিকে পাশ করতে পারেনি। এর জেরে অকৃতকার্য পড়ুয়ারা বিক্ষোভ দেখিয়েছে নানান জায়গায়। এবার এর কারণ জানতে চেয়ে উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারপার্সন মহুয়া দাসের কাছে চিঠি দিল রাজ্য সরকার।

গত বৃহস্পতিবার এবছরের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়। এবছর পাশের হার ছিল ৯৭.৬৯ শতাংশ। অর্থাৎ ২.৩১ শতাংশ ছাত্রছাত্রী ফেল করেছে। এর জেরে গত শুক্রবার থেকেই রাজ্যের নানান স্কুলে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন তাঁরা। বেশ কিছু জায়গায় পথ অবরোধ ও ভাঙচুরের খবরও আসে। আজ, শনিবারও সেই বিক্ষোভ দেখা যায় বিধাননগরে সংসদ কার্যালয়ের সামনে। সেখানে বিক্ষোভ দেখান বারাসতের একটি স্কুলের ছাত্রীরা।

এই বিক্ষোভকারীদের দাবী, তাদের পাশ করিয়ে দিতেই হবে। এরই সঙ্গে তাদের প্রশ্ন, যারা পরীক্ষা না দিয়ে পাশ করল, তাদের কী ভিত্তিতে মূল্যায়ন করা হল? অকৃতকার্য পড়ুয়াদের অভিযোগ, স্কুল থেকে কম নম্বর দিয়ে ইচ্ছা করেই তাদের ফেল করানো হয়েছে।

আরও পড়ুন- বুথ দখল, ছাপ্পা ভোটে অভিযুক্ত কাউকে রেয়াত করা হবে না, কড়া হাতে দমনের নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

জেলায় জেলায় এমন বিক্ষোভের ফলে আজ, শনিবার মহুয়া দাসের কাছে রিপোর্ট তলব করে চিঠি পাঠায় সরকার। কী কারণে এত পড়ুয়া ফেল করল? সংসদের মূল্যায়নের সূত্রে কী কোনও ভুল ছিল, তা জানতে চাওয়া হয়েছে সরকারের তরফে।

আবার অন্যদিকে, শিক্ষকদের একাংশের মতে, উচ্চমাধ্যমিকে ফেলের কারণ একাদশ শ্রেণিতে স্কুলের পরীক্ষা পদ্ধতি। পড়ুয়াদের ওপর চাপ বজায় রাখতে অনেক স্কুলের শিক্ষকরাই একাদশের পরীক্ষায় একটু চেপে কম নম্বর দেন।সেই নম্বরের ভিত্তিতেই এবার মূলত উচ্চমাধ্যমিকের পড়ুয়াদের মূল্যায়ন হয়েছে। এর ফলে বেশ কিছু পড়ুয়া ফেল করেছে। তবে তাদের মতে, উচ্চমাধ্যমিকে ২.৫ শতাংশ পড়ুয়া অকৃতকার্য হওয়া অস্বাভাবিক কিছু নয়।

You might also like
Comments
Loading...