রাজ্য

সবজির দাম আগুন, মাথায় হাত মধ্যবিত্তদের, কালোবাজারি রুখতে বাজারে হানা দিল এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চের আধিকারিকরা

রুটিন করে বেড়েই চলেছে পেট্রোল-ডিজেলের দাম। এরই সঙ্গে দোসর রান্নার গ্যাসও। আর এদিকে সবজির দামও আকাশছোঁয়া। এর জেরে মাথায় হাত মধ্যবিত্তদের। বাজারে গিয়ে সামান্য পরিমাণ সবজি কিনেই বাড়ি ফিরতে হচ্ছে। এবার সবজির মূল্যবৃদ্ধির আসল কারণ জানতে বাজারে বাজারে হানা দিল এনফোর্সমেন্ট আধিকারিকরা।

আজ, শনিবার সকাল থেকেই সল্টলেক, বারাকপুর এবং হাওড়ার কালীবাবুর বাজারে হানা দেন এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চের আধিকারিকরা। সবজি, ফল, মাছ এবং মাংস বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলেন তারা। কত দামে তারা সবজি কিনছেন আর কত দামেই বা বিক্রি করছেন, ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে সেই সংক্রান্ত নানান তথ্য জানার চেষ্টা করেন তাঁরা। বিক্রেতারা সবজি মজুত করে দাম বাড়াচ্ছে কী না, সে বিষয়টিও খতিয়ে দেখেন আধিকারিকরা। এদিন আধিকারিকরা কথা বলেন ক্রেতাদের সঙ্গেও।

অস্বাভাবিকভাবে মূল্যবৃদ্ধি হচ্ছে পেঁয়াজ, টম্যাটো, পটল, উচ্ছে-সহ নানান সবজির। ব্যবসায়ীদের কথায়, পেট্রোল-ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধির কারণেই সবজির দাম এত চড়া। বলে রাখি, এদিকে আবার শুক্রবার রাত ১২টার পর থেকে লিটারপিছু ডিজেলের ও পেট্রোলের দাম ৩৫ পয়সা পর্যন্ত বেড়েছে।

এর ফলে কলকাতায় লিটার পিছু ডিজেলের দাম গিয়ে দাঁড়াল ৯৯.০৮ টাকা। অন্যদিকে, এক লিটার পেট্রোলের দাম বেড়ে হয়েছে ১০৭.৭৮ টাকা। তিলোত্তমায় যে হারে জ্বালানির দাম বাড়ছে তাতে ডিজেলের দামও সেঞ্চুরি ছাড়াতে বেশি সময় লাগবে না।

সাধারণত সেপ্টেম্বর থেকে নভেম্বর পর্যন্ত জোগান কম থাকার কারণে পেঁয়াজের দাম বেশি হয়। এই সময় পেঁয়াজের দামেই ঝাঁঝ লাগে গৃহস্থালিদের। তবগে নভেম্বরের মাঝামাঝি থেকেই পেঁয়াজের দামের নিম্নমুখী হতে থাকে। এখন সেই দিনের আশাতেই মধ্যবিত্তরা।

Related Articles

Back to top button