রাজ্য

মেটিয়াব্রুজে ‘মিনি পাকিস্তান’ মন্তব্য ফিরহাদের, আদপে ঠিক কী বলেছিলেন সেদিন? বিতর্ক নিয়ে মুখ খুললেন তৃণমূল নেতা

‘মিনি পাকিস্তান’ মন্তব্য নিয়ে এখনও নানানভাবে তাঁকে হেনস্থা করা হয়ে থাকে। বিশেষত।, ভোটের আগে এই মন্তব্যকে হাতিয়ার করে কটাক্ষ শানাতেও ছাড়ে না বিরোধীরা। কিন্তু এই মন্তব্য কী তিনি আদৌ করেছিলেন? ঠিক কী বলেছিলেন সেদিন তিনি? এই বিতর্ক নিয়ে অবশেষে এক সংবাদমাধ্যমে মুখ খুললেন ফিরহাদ হাকিম।

সামনেই উত্তরপ্রদেশে নির্বাচনে। সেই নির্বাচনেও কোথায় গিয়ে যেন পাকিস্তান ঢুকে গিয়েছে। এই ‘পাকিস্তান’ শব্দকে হাতিয়ার করেই নাকি বিজেপি ভোটের সফলতা আনতে চাইছে, বিরোধীদের এমনটাই মত। বাংলায় নির্বাচনের সময়ও এই একই ঘটনা ঘটতে দেখা গিয়েছে। আর সমস্ত ঘটনার কেন্দ্রবিন্দু হলেন ফিরহাদ। তবে এবার নিজের এই মন্তব্য বিতর্ক নিয়ে স্পষ্ট জবাব দিলেন তিনি।

ফিরহাদের কথায়, “পাকিস্তানের ‘ডন’ পত্রিকার একজন সাংবাদিক আমার সাক্ষাৎকার নিতে এসেছিলেন। আমি তখন গার্ডেনরিচে প্রচার করছি। অবস্থাটা এ রকম, চার ফুট গলির মধ্যে দশ হাজার মানুষ থাকেন। চারদিক থেকে গোলাপ জল দিচ্ছে, ফুল দিচ্ছে, এ সব চলছে, এ সব দেখে ওই সাংবাদিক ভদ্রমহিলা বলেছিলেন, দেখে মনে হচ্ছে আমি করাচির কোনও রাস্তায় আছি। আমি হেসে বলেছিলাম, ‘ইউ ফিল অ্যাট হোম’ (মনে হবে বাড়িতেই আছেন)। এরপর আর কোনও কথা হয়নি তাঁর সঙ্গে”।

তিনি আরও বলেন, “এর পর ওই সাংবাদিক অসুস্থ হয়ে পড়েন বলে শুনেছিলাম, তাই আর কথাও হয়নি। পরে শুনলাম পাকিস্তানের কোনও এক পত্রিকায় আমার মুখে কথা বসিয়ে বিভিন্ন জিনিস লেখা হয়েছে। আর সেই পত্রিকা এক মাত্র বিজেপির পার্টি অফিসেই আসে”।

ফিরহাদের দাবী, যে শব্দ নিয়ে এত বিতর্ক, সেই শব্দ কখনও বলেনইনি। ইঙ্গিত দিয়ে তাঁর বক্তব্য, বিজেপি রাজনৈতিক লাভের জন্য এই বিষয় নিয়ে চর্চা শুরু করে। ফিরহাদের কথায়, “যেহেতু আমার নাম ফিরহাদ হাকিম, তাই ‘পাকিস্তান’ উচ্চারণ করা মানেই আমি পাকিস্তানকে সমর্থন করছি। এটাকে সাম্প্রদায়িক চেহারা দেওয়ার জন্য আমার মুখে এই কথাগুলো বসিয়ে দেওয়া হয়েছিল। আমি তাঁদের বলি, আপনারা যতটা ভারতীয়, আমি তার চেয়েও বেশি ভারতীয়। মৃত্যুর পর আমার দেহ এই ভারতবর্ষের মাটিতেই মিলিয়ে যাবে। এ ভাবে সাম্প্রদায়িক উসকানি আমার কাছে অত্যন্ত অপমানের। কারণ আমি ভারতকে কতটা ভালবাসি, তার প্রমাণ আমি তোমাকে দিতে যাব না। শুধু এটুকু বলতে পারি, দেশের জন্য আমি মৃত্যুবরণ করতে পারি। একটা ধর্মে জন্মেছি বলে বার বার করে আমাকে প্রমাণ দিতে হবে।

তৃণমূল নেতার মতে এসবই বিজেপির ভোটে জেতার রাজনীতি। তিনি স্পষ্ট বলেন, “আমরা মনে করি, এ সব করে সমাজকে ভাগ করে দিচ্ছে। সমাজে যে ঘৃণা ঢোকাচ্ছে, তার চেয়ে বড় সমাজবিরোধী আর কেউ নেই”।

ভিডিও সৌজন্যেঃ আনন্দবাজার অনলাইন

Related Articles

Back to top button