রাজ্য

‘মুখ যদি বাঁচাতে হয় তাহলে মুখ বন্ধ রাখুন’, পার্থ-কাণ্ড নিয়ে দলের বিধায়কদের কড়া নির্দেশ ফিরহাদের, ভয় পাচ্ছেন নাকি মন্ত্রী?

পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের (Partha Chatterjee) ইস্যু নিয়ে তৃণমূল যে যথেষ্ট অস্বস্তিতে ভুগছে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। এর জেরর বিরোধীরা চেপে ধরেছে শাসক দলকে। আর তাই কোণঠাসা তৃণমূল। এমন আবহে এই বিষয়ে দলের নেতাদের মুখ বন্ধ রাখারই পরামর্শ দেওয়া হয়েছে তৃণমূল নেতৃত্বের তরফে। আর এবারও সেই একই কাজই করলেন রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম (Firhad Hakim)।

বিধানসভার অধিবেশন চলাকালীন পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে বিজেপি বিধায়করা যদি কোনও মন্তব্য করেন, তাহলে সেই মন্তব্যে কোনও জবাব দেওয়া যাবে না। অধিবেশনের আগেই তৃণমূলের দলীয় পরিষদের দলীয় বৈঠক একথা স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন ফিরহাদ হাকিম। তাঁর স্পষ্ট বার্তা, পার্থ ইস্যুতে মুখ খুললে তৃণমূলেরই মুখ পুড়বে। তাই তাঁর মন্তব্য, “মুখ বাঁচাতে মুখ বন্ধ রাখুন’।

প্রসঙ্গত, এসএসসি নিয়োগ দুর্নীতির অভিযোগে ইডির হাতে গ্রেফতার হয়েছেন রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তাঁর ঘনিষ্ঠ বান্ধবী অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের দুটি ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার হয়েছে ৫০ কোটি টাকা। তাঁকেও গ্রেফতার করেছে ইডি। আপাতত জেল হেফাজতে রয়েছেন দু’জনেই। পার্থর গ্রেফতারির পরই তাঁকে সমস্ত মন্ত্রিত্ব এমনকি তৃণমূলের সমস্ত পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়। তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথায়, তিনি বাধ্য হয়ে পার্থকে মন্ত্রিসভা থেকে বাদ দিয়েছেন।

তৃণমূলের মতে, বিজেপি বিধানসভার আসন্ন অধিবেশনে পার্থর গ্রেফতারি নিয়ে ঝড় তুলবেই। ২৫ বছর পর এই প্রথম পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভার কোনও অধিবেশনে হাজির থাকবেন না পার্থ। এহেন পরিস্থিতিতে পার্থকে নিয়ে বিজেপি বিধায়কদের কোনও মন্তব্যের জবাব দিতে বারণ করা হয়েছে তৃণমূল বিধায়কদের। ফিরহাদ এদিন জানান যে পার্থকে নিয়ে তৃণমূল ইতিমধ্যেই যথেষ্ট অস্বস্তিতে রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে মুখ খুললে অস্বস্তি আরও বাড়বে।

এর আগেও পার্থকে নিয়ে দলের নেতা-কর্মীদের এমন নির্দেশই দেওয়া হয়েছে। পার্থর প্রসঙ্গ উঠলে হাসি মুখে তা এড়িয়ে যাওয়ার পরামর্শও দেওয়া হয়েছে বটে। এবার বিধায়কদের ভালোভাবে তা স্পষ্ট করে দিলেন ফিরহাদ। কিন্তু প্রশ্ন উঠছে, এত কিছু করে আদৌ কী দলের ভাবমূর্তি বাঁচাতে পারবেন তৃণমূল নেতা?

Related Articles

Back to top button