রাজ্য

আর মেয়র থাকছেন না ফিরহাদ হাকিম! তাকে সরিয়ে দিচ্ছেন মমতা, হঠাৎ হলটা কী?

আগামী মাসেই রয়েছে কলকাতা পুরসভার ভোট। ১৯শে ডিসেম্বর ভোট হবে, এমনটাই জানানো হয়েছে রাজ্য নির্বাচন কমিশনের তরফে। ইতিমধ্যেই ভোটের সমস্ত প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করে দিল তৃণমূল। দস্লের তরফে নেওয়া হল এক বড় সিদ্ধান্ত।

বর্তমানে কলকাতা পুরসভার প্রশাসক হলেন ফিরহাদ হাকিম। আবার রাজ্যের পরিবহণ মন্ত্রী হিসেবেও নিযুক্ত রয়েছেন তিনি। এর পাশাপাশি প্রশাসক মণ্ডলীতে রয়েছেন আরও তিন বিধায়ক। তারা হলেন দেবব্রত মজুমদার, দেবাশিস কুমার, অতীন ঘোষ। জানা গিয়েছে, আসন্ন পুরভোটে ফিরহাদ হাকিম-সহ বাকি তিনজনকে আর প্রার্থী করবে না তৃণমূল।

পুরসভার ভোটে প্রার্থী নির্বাচিত না হলে কলকাতা পুরসভার মেয়রের পদ হারাবেন ফিরহাদ হাকিম। এই নিয়ে বেশ চর্চা শুরু হয়েছে। কিন্তু হঠাৎ কেন এমন সিদ্ধান্ত? তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন যে দলের তরফে ‘এক ব্যক্তি এক পদ’, এই নীতি মেনে চলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই কারণে ফিরহাদ হাকিম-সহ বাকি তিন নেতা যখন অন্যান্য পদে নিযুক্ত রয়েছেন, তাহলে পুরসভার ভোটে তাদের আর প্রার্থী করে নতুন পদ দেওয়া হবে না।

এদিকে গত বৃহস্পতিবার একটি সাংবাদিক সম্মেলন থেকে কলকাতা পুরসভার পুরপ্রশাসক তথা রাজ্যের পরিবহন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলেন, “প্রথমে ভারতের বিরোধী দল হব, তারপর ভারতের সেবক দল হব। এতদিন ভারতে শাসকদল কাজ করত, এখন সেবক দল কাজ করবে”।

বাংলার নির্বাচন নিয়ে বারবার আদালতের দ্বারস্থ হওয়ায় তিনি বিজেপিকে খোঁচা দিয়ে বলেছেন, “ওঁরা আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলেছে বলেই এমন ছন্নছাড়া হয়ে গিয়েছে”।

এদিন ত্রিপুরা নিয়েও বিজেপিকে খোঁচা দেন ফিরহাদ হাকিম। তিনি বলেন, “ত্রিপুরার মানুষকে গণতন্ত্রের অধিকার দিতে ব্যর্থ হয়েছে বিপ্লব দেবের সরকার। তৃণমূল এর জবাব দেবে। মানুষকে গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরিয়ে দেবে”। তিনি আরও বলেন, “বিজেপি ভোট লুঠ করতে পারবে, কিন্তু মানুষের অধিকার ছিনিয়ে নিতে পারবে না। তৃণমূল ত্রিপুরার মানুষের মনে ঢুকে গিয়েছে, আগামী দিনে আমরাই ত্রিপুরায় সরকার গড়ব”।

Related Articles

Back to top button