সব খবর সবার আগে।

ফিডব্যাকের নাম করে ফোন নম্বর বিনিময়, পরে ব্ল্যাকমেল করে ধর্ষণ, ৬৬ জন মহিলাকে ধর্ষণের অভিযোগ ডেলিভারি বয়ের বিরুদ্ধে

এখনও পর্যন্ত ব্ল্যাকমেল করে প্রায় ৬৬ জন মহিলাকে ধর্ষণ করেছে। পুলিশের জালে আটক সিরিয়াল ধর্ষক। এমনই অভিযোগ উঠেছে ডেলিভারি বয় বিশাল বর্মার বিরুদ্ধে। এক মহিলার অভিযোগের ভিত্তিতে বিশাল ও তাঁর বন্ধু সুমন মণ্ডলকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রের খবর, অভিযুক্ত বিশাল ব্যান্ডেল কেওটা ত্রিকোণ পার্কের বাসিন্দা। ফ্লিপকার্টের ডেলিভারি বয়ের কাজ করে সে। ডেলিভারি দিতে গিয়ে ফিডব্যাকের নাম করে মহিলাদের ফোন নম্বর নিত সে। এরপর ধীরে ধীরে বন্ধুত্ব জমিয়ে ভিডিও কল করে ছবি তুলে রাখত। পরে সেই ছবি দিয়ে ব্ল্যাকমেল করত বিশাল। মহিলাদের নিজের বাড়িতে ডেকে পাঠাত। এরপর তাদের ধর্ষণ করত বলে জানা গিয়েছে।

তাঁর স্বীকার হত মূলত গৃহবধূরাই। সম্প্রতি, চুঁচুড়ার এক গৃহবধূর সঙ্গেও এই একই কাজ করে সে। সেই মহিলাই পুলিশের কাছে তার নামে অভিযোগ দায়ের করে। অভিযোগ, বাড়িতে অর্ডার দিতে এসে মোবাইল নম্বর চেয়েছিল বিশাল। ফিডব্যাক দেওয়ার অনুরোধ করে। এরপর বন্ধুত্ব জমিয়ে ভিডিও কল করে। এরপর একদিন বাড়িতে নিয়ে গিয়ে মহিলাকে ধর্ষণ করে সে।

আরও পড়ুন- ‘আমার বাংলা কেমন আছে?’ দেখা হতেই পরিষ্কার বাংলায় অনুপম হাজরাকে প্রশ্ন মোদীর

একই সঙ্গে মহিলার গায়ের সব গয়না খুলে দিতে বলে অভিযুক্ত। মহিলা রাজী না হওয়ায় তার মাথায় বন্দুক ঠেকায়, এও বলে যে তার কথা না শুনলে তাএ বন্ধুকে ডেকে এনে ধর্ষণ করাবে। এরপর মোবাইলে বেশ কিছু ছবি দেখায়। তাতে দেখা যায়, অন্যান্য মহিলাদের সঙ্গেও একই কাজ করেছে সে।

ওই মহিলার অভিযোগেই শনিবার রাতে তার বাড়ি থেকেই গ্রেফতার করা হয় বিশালকে। পুলিশ তার বাড়িতে যাওয়ার পর দেখে অন্য এক মহিলার সঙ্গেও এই একই কাজ করছে সে। পরে ওই মহিলাকে জেরা করলে জানা যায়, তাঁকেও এই একইভাবে ফাঁসিয়েছে সে। বিশালের থেকে যে বন্দুক উদ্ধার করা হয়, তা আসল নয় বলে জানিয়েছে পুলিশ। এছাড়াও, তার ফোন থেকে অজস্র ছবি ও ভিডিও উদ্ধার হয়েছে। তাতে তার কুকীর্তির প্রমাণ মিলেছে। ছবি দেখেই বিশালের বন্ধু সুমন মণ্ডলের কথা জানতে পারে পুলিশ। সুমন পেশায় রং মিস্ত্রি। এরপর তাঁকেও গ্রেফতার করে পুলিশ। দু’জনকে চুঁচুড়া আদালতে পেশ করা হয়।

You might also like
Comments
Loading...