সব খবর সবার আগে।

বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে বাতাসে কার্বন কণার পরিমাণ হ্রাসের শপথ কেভেন্টার অ্যাগ্রোর

পরবর্তী ৫ বছরে বাতাসে কার্বন কণার পরিমাণ ৭৫% কমানোর লক্ষ্যে নেমেছে কেভেন্টার অ্যাগ্রো।সংস্থার বারাসাত প্ল্যান্টে রয়েছে পূ্র্ব ভারতের সর্ববৃহৎ রুফটপ সোলার প্যানেল। এই সৌর প্যানেল বছরে ২ হাজার ৬০০ মেট্রিক টনের বেশি কার্বন নিঃসরণ কমাতে সক্ষম।

জলবায়ু পরিবর্তন ঠেকাতে প্রকৃতিকেই অগ্রাধিকার দিতে হবে, নিতে হবে আরও সক্রিয় ভূমিকা তা আমাদের আমাদের আরও জোরালোভাবে মনে করিয়ে দিল করোনা। বিশ্বজোড়া বিশেষজ্ঞরা এখনও কোভিড ১৯ প্রতিরোধী টিকা তৈরির কাজ এখনও চালিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু সুফল এখনও মেলেনি। ‌ একইসঙ্গে যাতে ভবিষ্যতে এই ধরনের মহামারী ফের যাতে দেখা না দেয়, সেজন্য পরিবেশ বান্ধব পদক্ষেপ করার গুরুত্বের বিষয়ে এখন সোচ্চার গোটা পৃথিবী। পূর্ব ভারতে সবচেয়ে দ্রুতগতিতে বাড়ছে যেসব খাদ্য ও পানীয় সংস্থা তাদের অন্যতম কেভেন্টার অ্যাগ্রো। আজ বিশ্ব পরিবেশ দিবসে এই সংস্থা ঘোষণা করল, ২০২৫ সালের মধ্যে কার্বন নিঃসরণ ৭৫ শতাংশ কমানোর জন্য তারা শপথ নিচ্ছে।

সবুজ ভবিষ্যতের দিকে নির্ধারক পদক্ষেপ করার লক্ষ্যে, কেভেন্টার অ্যাগ্রো সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গের বারাসত ইউনিটে বসিয়েছে পূর্ব ভারতের সবচেয়ে বড় রুফটপ সৌর প্ল্যান্ট। প্রকল্পটি ২.১৫ মেগাওয়াটের। বছরে ২৬৪৭ মেট্রিক টন কার্বন নিঃসরণ কমানোর পাশাপাশি এই প্ল্যান্ট ২.৮৩৫ মিলিয়ন ইউনিট বিদ্যুৎ উৎপাদন করবে। এই প্রকল্প ছড়িয়ে রয়েছে ২ লক্ষ বর্গফুটের বেশি জায়গার ওপর (২,০০,১৭৩ স্কোয়ের ফুট)। এটা পূর্ব ভারতের সবচেয়ে বড় রুফটপ সৌর প্ল্যান্ট।

এবিষয়ে কেভেন্টার অ্যাগ্রোর সিএমডি মায়াঙ্ক জালান জানান, ‘কেভেন্টরা অ্যাগ্রোয় আমাদের লক্ষ্য হল প্রতিদিন জীবনকে সমৃদ্ধ করা। আমরা বিশ্বাস করি এটা তখনই যথার্থভাবে অর্জন করা সম্ভব যখন আমরা খুব ভালভাবে পরিবেশের পরিচর্যা করব। কোভিড ১৯ সংক্রমণের অনেক আগেই এবং এখন মনে করা হচ্ছে এই ভাইরাস সংক্রমণ মানুষের বিরুদ্ধে প্রকৃতির প্রতিশোধ, আমরা ২০২৫ সালের মধ্যে গ্রিনহাউস গ্যাসের নিঃসরণ ৭৫% কমানোর একটা পরিকল্পনার কথা ভেবেছিলাম। এবং এটাও ঠিক করেছিলাম যে যত বেশি সম্ভব পুনর্ব্যবহারযোগ্য এনার্জি ব্যবহারে জোর দেব। বৃহৎ ও দায়িত্বশীল খাদ্য সংস্থা হিসাবে আমরা আজ শপথ নিচ্ছি যে আমরা টেকসই ব্যবসার নীতি মেনে চলব এবং কার্বন নিঃসরণ পুরোপুরি কমানোর পথে হাঁটব।’

You might also like
Leave a Comment