রাজ্য

Breaking: কলকাতা পুলিশের জালে ধরা পড়ল শীর্ষ জামাত জঙ্গি নেতা

বড়সড় সাফল্য পেল কলকাতা পুলিশ। শুক্রবার মুর্শিদাবাদ থেকে বাংলাদেশের নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জামাত-উল-মুজাহিদিনের এক শীর্ষ নেতাকে গ্রেফতার করল কলকাতা পুলিশের স্পেশাল টাস্কফোর্স। এক বছর ধরেই এই শীর্ষ নেতা আব্দুল বড় করিমকে খুঁজছিল পুলিশ। শীর্ষ জঙ্গি নেতাদের অস্ত্র ও বাসস্থান সরবরাহ সহ বিভিন্ন মামলায় এই জঙ্গি নেতা অভিযুক্ত।

মুর্শিদাবাদে সুতি পুলিশ থানা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয় এবং তাকে শীঘ্রই আদালতে পেশ করা হবে। অন্য জামাত নেতা সালাহউদ্দিন সালেহিনের খুব ঘনিষ্ঠ ছিল এই করিম। মুর্শিদাবাদের জঙ্গিপুরের বাসিন্দা এই করিম। এক বছর আগে তার বাসস্থান থেকে বিস্ফোরক ও অন্যান্য তথ্য প্রমাণাদি পাওয়া গেছিল। বাংলাদেশের যে সমস্ত শীর্ষ জামাত নেতার নাম পুলিশের ওয়ান্টেড লিস্টে রয়েছে তার মধ্যে অন্যতম ছিল এই করিম।

কলকাতা পুলিশের স্পেশাল টাস্কফোর্সের ডেপুটি কমিশনার অপরাজিতা রাই জানিয়েছেন, ২০১৮ সালে তার বাড়িতে তারা হঠাৎ তল্লাশি চালিয়ে ছিলেন সেখানে তারা যথেষ্ট পরিমাণে বিস্ফোরক ও বিভিন্ন জিহাদি জিনিসপত্র পেয়েছিলেন। কিন্তু সেই সময় এই জঙ্গি নেতা পালিয়ে গিয়েছিলেন। তারপর থেকে তার খোঁজে তল্লাশি জারি ছিল। বাংলাদেশের যেসব জামাত সদস্য পুলিশের জালে ধরা পড়েছে তাদের থেকেই শীর্ষ জঙ্গি নেতা হিসাবে করিমের নাম জানা গেছে।

২০১৪ সাল থেকেই সালাউদ্দিন নিখোঁজ ছিল এবং বাংলাদেশ ও ভারতের মোস্ট ওয়ান্টেড এর তালিকায় তার নাম আছে। ২০১৪ সালে বর্ধমানের খাগড়াগড়ে যে বিস্ফোরণ ঘটে তার পিছনে হাত ছিল সালাহউদ্দিনের। সেজন্য ন্যাশনাল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সি তাকে হন্যে হয়ে খুঁজছিল। অন্যদিকে, ২০১৮ সালে বোধগয়ায় যে বিস্ফোরণ ঘটেছিল তার সঙ্গে যুক্ত ছিল করিম।

অপরাজিতা আরও বলেন, ভারতের টপ থ্রি মোস্ট ওয়ান্টেড জামাত জঙ্গি নেতার মধ্যে আব্দুল করিম একজন। ধুলিয়ান মডিউলের নেতৃত্ব দিত সে এবং সালাহউদ্দিন এর মত শীর্ষ নেতাদের আশ্রয় অস্ত্রশস্ত্র সহ বিভিন্ন জিনিস সরবরাহ করত। স্বাভাবিকভাবেই করিমের গ্রেফতারি কলকাতা পুলিশকে এক বড় সাফল্যের মুখ দেখাল।

Related Articles

Back to top button