সব খবর সবার আগে।

দূর্গতদের জন্য পাঠানো কেন্দ্রের টাকা যেন‌ও তৃনমূলের পকেটে না যায়, কেন্দ্রীয় দলকে অনুরোধ বিরোধীদের।

আমফান তান্ডবে লন্ডভন্ড বাংলার ক্ষয়ক্ষতি সরেজমিনে দেখতে এসেছিল কেন্দ্রীয় দল। বিপর্যয় মোকাবিলায় পাওয়া কেন্দ্রীয় সাহায্য যেন‌ও তৃণমূল কাটমানি হিসাবে হজম করে ফেলতে না পারে তা নিশ্চিত করতে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদলকে পরামর্শ দিল বিরোধী দলগুলি। শনিবার কলকাতার এক পাঁচতারা হোটেলে কেন্দ্রীয় দলের সদস্যদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন বাম-বিজেপি ও কংগ্রেসের বিরোধী নেতারা। সেখানে সবার মুখে একই সুর, টাকা আসছে আসুক, কিন্তু তৃণমূল যেন সেই টাকা ঢোকাতে না পারে তা নিশ্চিত করতে হবে কেন্দ্রকেই।

দুদিন ধরে আমফান বিধ্বস্ত উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিস্তীর্ণ এলাকা ঘুরে দেখার পর শনিবার কলকাতায় ফেরেন কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদলের সদস্যরা। সেখানে তাঁদের সঙ্গে দেখা করেন বিরোধী দলের নেতারা। বিজেপির তরফে দিলীপ ঘোষের নেতৃত্বে দেখা করে প্রতিনিধিদল। বামেদের তরফে ছিলেন সুজন চক্রবর্তী। কংগ্রেসের আবদুল মান্নান ও সোমেন মিত্র।

সেখানে তৃণমূল সরকারের বিরুদ্ধে আমফানের ক্ষতিপূরণের টাকা নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ তোলেন দিলীপবাবু। তিনি বলেন, ‘ইতিমধ্যে রাজ্য সরকার যে ১,০০০ কোটি টাকা পেয়েছে তা নিয়েও দুর্নীতি শুরু হয়েছে। পাকা বাড়ি মালিক এমন তৃণমূল নেতারা ২০,০০০ টাকা করে পেয়েছেন। ওদিকে যাদের কাঁচা বাড়ি ভেঙেছে তারা টাকা পাননি।’ তাঁর দাবি, ‘আমফানে বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে থাকলে কোথায় ক্ষতিপূরণের আবেদন জানাতে হবে তা বুঝতে পারছেন না সাধারণ মানুষ। সেজন্য একটা অ্যাপ বা ওয়েবসাইট চালু করা উচিত।’

সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তী বলেন, ‘এখানে টাকা আসা মানেই তৃণমূল নেতাদের পকেট ভরবে। সেই রাস্তা বন্ধ করতে হবে।’ কেন্দ্রীয় দলের কাছে একই অভিযোগ করেছেন কংগ্রেস নেতা সোমেন মিত্র ও আবদুল মান্নান।

You might also like
Leave a Comment