রাজ্য

‘অগ্নিপথ আসল দুর্নীতি, চব্বিশের ভোট মিটলেই অগ্নিবীরদের বাড়ি পাঠিয়ে দেবে কেন্দ্র সরকার’, ফের একবার বিজেপিকে তোপ মমতার

এর আগেও তিনি বারবার তোপ দেগেছেন। এবার ফের একবার কেন্দ্রের অগ্নিপথ (Agnipath) প্রকল্প নিয়ে বিজেপি সরকারকে তোপ দাগলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। তাঁর কথায়, “অগ্নিপথ প্রকল্প আসলে দুর্নীতি। ২০২৪ সালের লোকসভা ভোটের আগে ললিপপ দেখাচ্ছে বিজেপি (BJP)”। মুখ্যমন্ত্রী আশঙ্কা প্রকাশ করে এও বলেন, “ভোট মিটলেই অগ্নিবীরদের বাড়ি পাঠিয়ে দেবে কেন্দ্রীয় সরকার”।

আজ, মঙ্গলবার আসানসোলের পোলো গ্রাউন্ডের কর্মীসভা থেকে তৃণমূল নেত্রী অগ্নিপথ প্রকল্প নিয়ে কেন্দ্রকে কটাক্ষ শানিয়ে বলেন, “৪ বছর চাকরি দেয়নি ওরা। আর এবার সাধারণ ছেলেমেয়েরা এই প্রশিক্ষণ (অগ্নিপথ প্রকল্প) পাবেন না। প্রশিক্ষণ পাবেন বিজেপির কিছু শাখার লোকজন। সেনাকে সামনে রেখে চালাকি করছে কেন্দ্রীয় সরকার”। মমতার আরও দাবী, “অগ্নিপথ প্রকল্পে রাজ্য পিছু কয়েক হাজার ছেলেমেয়ে চাকরি পাবেন। তাও মেরেকেটে মাত্র ৪ বছরের জন্য”। তিনি এও দাবী করেন যে কেন্দ্রের তরফে এমন নির্দেশিকা দেওয়া হয়েছে যে চার বছর পর সেই ছেলেমেয়েদের চাকরি দিতে হবে রাজ্য সরকারকে।

এখানেই শেষ নয়। মমতার সংযোজন, “কর্নেলবাবু চিঠি দিয়েছেন। বলছেন, ৪ বছর পর অগ্নিবীরদের চাকরির ব্যবস্থা করতে হবে রাজ্যকে। কেন্দ্রে ওদের ডেটা ব্যাংক আমাদের দিয়ে দেবে। তাঁদের চাকরির ব্যবস্থা করতে হবে রাজ্যকেই”।  

এরপরই তৃণমূল সুপ্রিমোর প্রশ্ন, “চাকরি দিতে আমার আপত্তি নেই। কিন্তু বিজেপির পাপ আমি কেন নেব? বিজেপির লোকেদের আমি কেন চাকরি দেব? ওদের ময়লা ওদেরই সাফ করতে হবে”। তাঁর সাফ কথা, “আমার রাজ্যে যুবক-যুবতীর অভাব নেই। চাকরি চাইলে, সবার আগে তাঁদের চাকরি দেওয়া হয়”।

এদিন ফের একবার অগ্নিবীরদের ৬০ বছর পর্যন্ত চাকরির অধিকারের দাবীতে সরব মমতা বলেন, “৪ বছরের চাকরিতে জীবন চলে না। চাকরি করতে দিতে হবে ৬০ বছর পর্যন্ত। সেটা না পারলে মিথ্যা কথা বলবেন না। আসলে এটা একটা দুর্নীতি। বিরাট বড় দুর্নীতি”।

এই অগ্নিপথ প্রকল্প আসলে কী?

সেনাবাহিনীর লোকবল অক্ষুন্ন রেখে আধুনিকীকরণের জন্য কেন্দ্রের তরফে নতুন প্রকল্পের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে, যার নাম অগ্নিপথ। এর মাধ্যমে সেনায় অস্থায়ীভাবে চার বছরের জন্য কর্মী নিয়োগ করা হবে। এদের পোশাকি নাম হবে ‘অগ্নিবীর’। ১৭ বছর থেকে ২১ বছর পর্যন্ত বয়সীরা এই প্রকল্পের সুবিধা পাওয়া যাবে। তবে চলতি বছরে ভর্তির সময়ে ২৩ বছরের যুবকরাও এই প্রকল্পের অংশ হতে পারবে।

Related Articles

Back to top button