সব খবর সবার আগে।

রাজ্য পুড়ছে করোনা জ্বরে, মুখ্যমন্ত্রী নাচ করছেন সংগীত মঞ্চে! হতবাক সাধারণ মানুষ! দেখুন ভিডিও

পশ্চিমবঙ্গে করোনা কিন্তু ধীরে ধীরে নিজের প্রকোপ আবার বাড়িয়েছে। এবার সর্দি কাশির সঙ্গে ছদ্মবেশে মানুষের শরীরে প্রবেশ করতে শুরু করেছে এই মারণ ভাইরাস। এখনো পর্যন্ত এর কোন প্রতিষেধক আবিষ্কার হয়নি অন্যদিকে যেভাবে উপসর্গহীন হয়ে রয়েছে এই রোগটি তাতে চিন্তার ভাঁজ পড়ছে চিকিৎসকদের কপালে। কিন্তু তাতে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিশেষ কিছু এসে যাচ্ছে বলে মনে হচ্ছে না এর কারণ তার সাম্প্রতিক কার্যকলাপ। গোটা রাজ্য বেশ বিধ্বস্ত, সে অর্থনীতি হোক অথবা স্বাস্থ্যব্যবস্থা।

সরকারি হাসপাতালে করোনার চিকিৎসা পাওয়া খুব সহজ কিন্তু এখনো হয়নি অন্যদিকে বেসরকারি হাসপাতালে মানুষ অর্থের অভাবে চিকিৎসা করাতে পারছেন না। রাজ্যের সুপার স্পেশালিটি সরকারি হাসপাতাল এসএসকেএমে গেলেই দেখা যাবে এরকম চিত্র যেখানে অসহায় ভাবে রোগীর পরিবার বাইরে বসে রয়েছেন একটু চিকিৎসার আশায়। আর আজ এসএসকেএম থেকে অনতিদূরেই মুখ্যমন্ত্রী উদ্বোধন করলেন বাংলা সঙ্গীত মেলা। সেখানেই তিনি মঞ্চে মেতে উঠলেন নাচ-গানে। যা দেখে হতবাক হয়ে গিয়েছেন রাজ্যের অধিকাংশ মানুষ। চিকিৎসকরা বলছেন যেখানে করোনা এখন সুপার স্প্রেডার হয়ে গিয়েছে জিনের গঠন বদলে সেখানে মাস্ক সঠিকভাবে না পরে, কোনরকম সামাজিক দূরত্ব বিধি না মেনে কিভাবে একজন মুখ্যমন্ত্রী সরকারি অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে পারেন? গোটা অনুষ্ঠানটিতে অনেকবার মুখ্যমন্ত্রীকে মাস্ক নাক থেকে নামিয়ে রাখতে দেখা গিয়েছে এবং উপস্থিত মানুষজনও সব সময় মাস্ক পরে ছিলেন না। সামাজিক দূরত্ব বিধি একদমই মানা হয়নি। এখন প্রশ্ন হচ্ছে যে এই জমায়েত থেকে যদি কারোর করোনা হয় এবং তিনি যদি কোনো কারণে প্রাণ হারান তাহলে তার দায় কি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নেবেন?

মুখ্যমন্ত্রীর দাবি করোনার কারণে দীর্ঘদিন সংগীত শিল্পের সঙ্গে যুক্ত মানুষরা নিজেদের রোজগার হারিয়েছে। সেই কারণেই এই সঙ্গীত মেলার আয়োজন করা হয়েছে যাতে তারা আবার নিজেদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসেন। কিন্তু ওয়াকিবহাল মহলের প্রশ্ন এইভাবে জমায়েত করে যদি করোনা আক্রান্ত হন শিল্পীরা তাহলে রাজ্য সরকার কি তাদের দায়িত্ব নেবে? যেখানে রাজ্য সরকার নিজেই সাধারণ মানুষকে অনুরোধ করছে সোশ্যাল ডিসটেন্স বিধি মেনে চলতে সেখানে সরকার নিজেই কিভাবে এই অনুষ্ঠান আয়োজন করতে পারে যেখানে জমায়েতের সম্ভাবনা রয়েছে?

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে বলেছেন যে রাজ্য সরকার ডিসেম্বর থেকে জানুয়ারি মাসে গোটা রাজ্যে সব মিলিয়ে ৬৩০ টি মেলার আয়োজন করবে যা শুনে প্রমাদ গুনছেন চিকিৎসকরা কারণ শীতকালে করোনা নিজের রূপ ধারণ করতে চলেছে বলে তাদের আশঙ্কা।

সব থেকে আশ্চর্যজনক বিষয় হল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আজকে নিজেই বলেছেন করোনা ভয়াবহ আকার ধারণ করতে চলেছে, সবাই মাস্ক পরুন কিন্তু তিনি নিজেই পরোক্ষভাবে করোনাকে ছড়ানোর সুযোগ করে দিলেন মেলা আয়োজন করে এবং মাস্ক সঠিকভাবে ব্যবহার না করে, যা দেখে নিন্দার ঝড় উঠেছে গোটা বাংলায়।


ভিডিও-টি ২৮ মিনিট থেকে দেখুন

You might also like
Comments
Loading...