রাজ্য

‘সরকারের তরফে আনা শীতবস্ত্র কোথায়’, ভরা সভায় জেলাশাসককে ধমক মমতার, মাঝপথে বক্তৃতা থামিয়ে বসে পড়লেন মঞ্চে

হিঙ্গলগঞ্জের (Hingalgunj) সভায় শুরুতেই ঘটে গেল ব্যাঘাত। সাধারণ মানুষের জন্য সরকারের তরফে আনা শীতবস্ত্র (winter clothes) মঞ্চে না দেখে কার্যত চটে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। মঞ্চে দাঁড়িয়ে জেলাশাসককে ধমক দেন তিনি। মাঝপথেই বক্তৃতা থামিয়ে মঞ্চে বসে সাধারণ মানুষের উদ্দেশে বলেন, “আমি বসলাম, দেখি কতক্ষণে আসে। আপনারাও বসুন”। শীতবস্ত্র না আসা পর্যন্ত মঞ্চেই বসে রইলেন মুখ্যমন্ত্রী।

আজ, মঙ্গলবার সকালে হিঙ্গলগঞ্জে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে বনদেবীর পুজোর পর সভাস্থলে পৌঁছন তিনি। এদিন সভার শুরুতেই মমতা বলেন যে হিঙ্গলগঞ্জের বাসিন্দাদের জন্য শীতবস্ত্র এনেছেন তিনি।

কিন্তু পরক্ষণেই তিনি দেখেন যে মঞ্চে কোনও শীতবস্ত্র রাখা নেই। সঙ্গে সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী প্রশ্ন তোলেন, শীতবস্ত্র কোথায়? সম্ভবত জানানো হয়, সরকারের তরফে আনা শীতের পোশাক বিডিও অফিসে রাখা রয়েছে। এরপরই জেলাশাসকের উপর বেজায় চটে যান মুখ্যমন্ত্রী।

এদিন ভরা মঞ্চে দাঁড়িয়ে প্রশাসনিক কর্তাদের ধমক দেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান। মমতা বলেন, “এখানে আসব বলে কম্বল, চাদর, সোয়েটার কিনেছি। এসে দেখছি …! বিডিওকে এখনই শীতবস্ত্র নিয়ে আসতে হবে। আমি তো আগেই বলেছি নিজে সোজাসুজি সকলকে শীতে উপহার তুলে দেব। কারও মারফত দেব না”। মমতা এও প্রশ্ন তোলেন যে বিডিও অফিসে কেন শীতবস্ত্র রাখা হল? জেলাশাসককে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, “তোমার কাছে এটা আমি আশা করিনি”।

এরপরই মাঝপথেই সভা থামিয়ে দেন মুখ্যমন্ত্রী। বলেন, “আমি তো ওটা দিতেই এসেছিলেন। আমি এই বসলাম, শীতের পোশাক আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করব”। বিডিও, জেলাশাসকরা দায়িত্ব পালন না করলে কড়া পদক্ষেপের হুঁশিয়ারিও দেন মমতা।

এরপর শীতবস্ত্র এলে তা সাধারণ মানুষের মধ্যে বিলিয়ে দেন। তবে বিডিও অফিস অনেকটা দূরে হওয়ায় সব জিনিস আনা হয়নি। আগামীকাল বেলা ১২টার সময় ফের বস্ত্র বিতরণ হবে বলে জানানো হয়েছে।

Related Articles

Back to top button