রাজ্য

‘মানুষ যখন ঠাকুর দেখতে রাস্তায় বের হয়, তখন পাহারাদার হিসেবে থাকি আমি’, পুজো উদ্বোধনে গিয়ে নিজেকে ‘পাহারাদার’ বললেন মমতা

আগামী সপ্তাহ থেকেই বাজবে পুজোর বাদ্যি। দোরগোড়ায় এসে দাঁড়িয়েছে দুর্গাপুজো। এরই মধ্যে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বললেন, “মানুষ যখন রাস্তায় বের হয়, তখন আমি তাদের পাহারাদার হিসেবে থাকি”। পুজোর উদ্বোধনে গিয়ে একথা বলার পাশাপাশি সকল আধিকারিকদের সতর্ক করে মমতা বলেন, “পুজোর সময় যাতে কোনো রকম অসুবিধা সৃষ্টি না হয়, তা দেখার দায়িত্ব সকলের”।

দুর্গাপুজোর তোড়জোড় শুরু হয়েছে শহর জুড়ে। সব জায়গায় চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি। গতকাল থেকেই শুরু হয়ে গিয়েছে পুজোর উদ্বোধন। গতকাল শ্রীভূমি, টালা প্রত্যয় ও আরও বেশ কয়েকটি পুজোর উদ্বোধন করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আগামী সপ্তাহে পুজোর উদ্বোধন করতে কলকাতায় আসছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

গতকাল, পুজোর উদ্বোধন করতে গিয়ে নিজেকে ‘পাহারাদার’ বলে আখ্যা দেন মমতা। এর পাশাপাশি পুজোতে যাতে কোনও ধরণের বিশৃঙ্খলার ঘটনা না ঘটে, তা নিয়েও আধিকারিকদের সতর্ক করেন মুখ্যমন্ত্রী। গত দু’বছর ধরে করোনা পরিস্থিতি কাটিয়ে এই বছর বেশ জাঁকজমকভাবে পালিত হচ্ছে দুর্গাপুজো।

এদিন পুজোর উদ্বোধনে গিয়ে মমতা বলেন, “একটাই অনুরোধ করছি, পুজোর সময় রাস্তা যেন বন্ধ না হয়। মানুষ প্লেন ধরতে সক্ষম হলো না কিংবা কোথাও যেতে অসুবিধা হলো, সেই রকম ঘটনা যেন না ঘটে। একটা ক্লাবের কর্তা বলেই হয়ে গেল, সেটা করা যাবে না। পুজোর সময় যাতে সকল রাস্তা সচল রাখা যায়, তা দেখতে হবে”।

তিনি আরও বলেন, “আমি পুজোর সময় ছুটি কাটাই না। মানুষ যখন রাস্তায় বের হয়, তখন আমি তাদের পাহারাদার হিসেবে থাকি। সব খবর রাখি। বিধাননগরে নতুন কমিশনার হয়ে এসেছে গৌরব। দেখে  নেবে সবকিছু। নাহলে আমি ওকে দেখব”।

বলে রাখি, কলকাতার দুর্গাপুজোকে হেরিটেজের তকমা দেওয়া হয়েছে ইউনেস্কোর তরফে। তা উদযাপন করতে গত ১লা সেপ্টেম্বর মুখ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে শহরে হয় দুর্গাপুজোর র‍্যালি। পুজোর সময় যাতে কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে, সেই জন্য নানান সতর্কতা দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বাংলায় নানান দুর্নীতির জেরে চাপের মুখে তৃণমূল সরকার। সেই কারণে নিজেকে ‘পাহারাদার’ আখ্যা দিয়ে মমতা হয়ত এটাই বোঝাতে চাইলেন যে বর্তমান সময় ও পরবর্তীতেও বাংলার সব দায়িত্ব তাঁর কাঁধেই থাকবে।

Related Articles

Back to top button