রাজ্য

শুরু হলো মমতার স্বৈরাচারীতা! এবার সমস্ত স্কুলে পড়ুয়াদের পড়তে হবে মমতার পছন্দের রং নীল সাদা পোশাক

সদ্য বেরিয়েছে রাজ্যের 108 পৌরসভা ভোটের ফলাফল। সেখানে 102 টি পৌরসভা দখল করেছে তৃণমূল। বিরোধীদের দাবি বেদার ছাপ্পা মেরে লুটতরাজ করে এই ভোটে জয়লাভ করেছে তৃণমূল। যদিও তৃণমূলের দাবি শান্তির ভোট হয়েছে এবং মানুষ উন্নয়নের পক্ষে ভোট দিয়েছেন।

আর এর মধ্যেই নবান্ন থেকে এসে গেল নতুন নির্দেশিকা। শিক্ষা দপ্তর কে জানানো হল যে এবার থেকে রাজ্যের সমস্ত সরকারি স্কুল, সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত স্কুল বা সরকার পোষিত স্কুলগুলিতে ছাত্রছাত্রীদের জন্য হতে চলেছে নীল সাদা রঙের পোশাক। ইতিমধ্যেই নবান্নের তরফে শিক্ষা দপ্তরে চলে গেছে এই নির্দেশিকা। সেখান থেকে ব্লকে ব্লকে বিডিওদের কাছে এই নির্দেশ পাঠানো হয়েছে।আরও জানা গেছে যে স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মাধ্যমে এই পোশাক তৈরি হবে এবং তা স্কুলে পৌঁছে দেওয়া হবে।

স্বনির্ভর গোষ্ঠীর কাছে ইতিমধ্যেই বিডিওরা এই নির্দেশ পৌঁছে দিয়েছেন এবং সেই গোষ্ঠীর পক্ষ থেকে গিয়ে স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের ড্রেসের মাপ নেওয়া হচ্ছে। স্কুলের পোশাক নিয়ে আর কোন বিশেষত্ব থাকছে না। আগে পোশাকে কোন বিশেষত্ব থাকলে তা শিক্ষা দপ্তর থেকে জিজ্ঞাসা করা হত স্কুল কে।কিন্তু এখন যেহেতু প্রত্যেকটা স্কুলের ইউনিফর্ম এর রং একই হচ্ছে তাই এখানে জিজ্ঞাসা করার কোন ব্যাপার নেই।

রাজ্যে বয়ন শিল্পের উন্নতি ঘটাতে এখন ঠিক হয়েছে, রাজ্যের ক্ষুদ্র ও ছোট শিল্প সংস্থাগুলির কাপড় কিনবে রাজ্যেরই অধীন সংস্থা তন্তুজ। সেই কাপড় তন্তুজর মাধ্যমে পাবে স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলি। তারপর পড়ুয়াদের মাপ নিয়ে ইউনিফর্ম তৈরি করে স্কুলে পৌঁছে দেবে তারা।

সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত ছেলেরা একটি হাফ ও ফুলশার্ট এবং একটি হাফ ও ফুলপ্যান্ট পাবে। প্রয়োজনে টাইও দেওয়া হবে। ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণির পড়ুয়ারা একটি হাফ এবং একটি ফুলশার্টের পাশাপাশি দু’টি করে ফুলপ্যান্ট পাবে। পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত মেয়েরা দু’টি শার্ট এবং একটি স্কার্ট ও একটি টিউনিক পাবে। স্কুল চাইলে টাইও দেওয়া হবে। ষষ্ঠ থেকে অষ্টমের ছাত্রীরা পাবে দু’জোড়া সালোয়ার কামিজ এবং ওড়না। ছেলেদের প্যান্টের পকেটের জন্য হালকা কাপড়ের হিসেব আলাদা করে দিতে হবে প্রস্তুতকারকদের। লোগো-সহ ব্যাজ আসবে দফতর থেকেই।

যদিও শিক্ষকসহ পড়ুয়া এবং অভিভাবকরা রাজ্যের এই সিদ্ধান্তে খুশি নন।তারা জানাচ্ছেন যে যদি অন্য কোন স্কুলের পড়ুয়া আরেক স্কুলে ঢুকে পড়ে তাহলে তাকে চেনা যাবে না। পড়ুয়ারা জানাচ্ছেন যে তারা দীর্ঘদিন ধরে যে পোষাকে অভ্যস্ত হঠাৎ করে নতুন একটি পোশাকে স্কুল গেলে তাদের মোটেই ভাল লাগবেনা।

Related Articles

Back to top button