সব খবর সবার আগে।

‘দার্জিলিংয়ে সোনার খনি রয়েছে, কাজে লাগাতে হবে’, কোন সোনার খনির খুঁজে পেলেন মুখ্যমন্ত্রী?

রাজ্যে তৃতীয়বার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই বারবার কর্মসংস্থানের উপর জোর দিয়েছে তৃণমূল সরকার। আজ, মঙ্গলবার কার্শিয়াংয়ে প্রশাসনিক বৈঠক করে সেই একই কথাই বলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এরই মধ্যে তিনি দার্জিলিংয়ে সোনার খনির খোঁজ দেন। তা কীভাবে কাজে লাগাতে হবে, তা-ও বাতলে দেন মুখ্যমন্ত্রী নিজেই।

আজ, মঙ্গলবার প্রশাসনিক বৈঠক করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “আমরা কর্মসংস্থান নিয়ে আলোচনা করি। কিন্তু আমাদের সামনে থাকা জিনিসগুলোকে কীভাবে কাজে লাগানো যায়, সে বিষয়ে আমরা ওয়াকিবহাল নই। দার্জিলিংয়ে পাহাড়ের গায়ে যে গাছ থাকে, সেগুলির পাতা যদি রপ্তানি করা যায়, তা অত্যন্ত লাভজনক। সেই সঙ্গে রয়েছে প্রচুর কর্মসংস্থানের সুযোগ”। এই পাতা রপ্তানির সুযোগকেই সোনার খনির বলে  তুলনা করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই কাজকে সঠিকভাবে কাজে লাগানোর পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

এর পাশাপাশি এদিন ঝরনার জল ব্যবহার করে পাহাড়ে ওয়াটার বটলিং প্ল্যান্ট তৈরি করারও পরামর্শ দেন মুখ্যমন্ত্রী। এছাড়াও, বাংলা ডেয়ারি থেকে দুগ্ধজাত দ্রব্য বিক্রির কথা বলেন। তিনি জানান যে এর ফলে কাজের সুযোগ বাড়বে। সকলের পাশে থাকার আশ্বাস দেন মুখ্যমন্ত্রী।

পাহাড়ি ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, “আপনারা বিনিয়োগ করুন, আমরা সহযোগিতা করব”। এছাড়া পাহাড়ের পর্যটন শিল্পে জোর দেওয়ার কথাও বলেন মমতা। বলেন পাহাড়ের ছেলেমেয়েদের স্কিল ডেভেলপমেন্টে জোর দেওয়ার কথাও। অর্থাৎ বলাই যায়, কর্মসংস্থান হোক কিংবা উন্নয়ন, পাহাড় নিয়ে বিশেষভাবে ভাবছে রাজ্য।

বলে রাখি, একগুচ্ছ কর্মসূচি নিয়ে ২৪শে অক্টোবর উত্তরবঙ্গে গিয়েছে  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গতকাল, সোমবার তিনি শিলিগুড়িতে প্রশাসনিক বৈঠক করেন। মঙ্গলবার বৈঠক সারেন কার্শিয়াংয়ে। তাঁর উত্তরবঙ্গের এই সফরে দার্জিলিংয়ের ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করবেন মুখ্যমন্ত্রী। উত্তরবঙ্গের সফর শেষ করে গোয়া সফরে যাবেন তিনি।

You might also like
Comments
Loading...