সব খবর সবার আগে।

তাঁকে না জানিয়েই বিজেপি থেকে দলে লোক ঢোকানো হচ্ছে, সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ উগড়ে দিলেন তৃণমূল বিধায়ক মনোরঞ্জন ব্যাপারী

একুশের নির্বাচনে বলাগড় কেন্দ্র থেকে ভোটে লড়ে জিতেছেন তিনি। বিধায়ক হিসেবে পদ পাওয়ার পর থেকেই একাধিকবার নানান মন্তব্য করে বিতর্কে জড়িয়েছেন এই তৃণমূল নেতা। নানান সময় সোশ্যাল মিডিয়ায় নানান পোস্টের মাধ্যমে নিজের ক্ষোভ উগড়ে দেন তিনি।

এবার ফের একবার নিজের ক্ষোভ জাহির করার জন্য সোশ্যাল মিডিয়াকেই বেছে নিলেন মনোরঞ্জন ব্যাপারী। এখন ফের আবার বিজেপি থেকে তৃণমূলে যোগ দেওয়ার হিড়িক উঠেছে। নানান বিজেপি নেতা-মন্ত্রী দলে দলে তৃণমূলে যোগ দিচ্ছেন। আর এখানেই অসুবিধা মনোরঞ্জন ব্যাপারীর।

সোশ্যাল মিডিয়ায় তিনি লেখেন যে দলের তরফে তাঁকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যে ভোটের আগে যারা তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিল, তাদের এই মুহূর্তে আর দলে ফেরানো যাতে না হয়। এও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যে বিজেপি ছেড়ে যারা তৃণমূলে আসতে চাইছে, তাদের যাতে লিখিতভাবে আবেদন করতে বলা হয়।

মনোরঞ্জন ব্যাপারীর কথায়, সেই আবেদন শীর্ষ নেতৃত্বের কাছে পাঠাতে হবে। সেখান থেকেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে যে কোনও বিজেপি নেতাকে তৃণমূলে নেওয়া হবে কী না।

কিন্তু মনোরঞ্জন ব্যাপারীর অভিযোগ, এই দলের তরফে এমন নির্দেশ দেওয়া সত্ত্বেও বলাগড়ে এক দল নেতা বিজেপি থেকে লোক ঢোকাচ্ছে, আর তাও তাঁর অজান্তেই। তিনি লেখেন, “বলাগড়ে এক দল কথিত নেতা গনহারে বিজেপি থেকে লোককে তৃনমূলে ঢোকাচ্ছে আমি সে বিষয়ে অবগত নই। আমাকে কেউ কিছু জানাবার প্রয়োজন মনে করছে না। এমনটা করা যায় কিনা তাও আমার অজানা”।

এরপরই মনোরঞ্জন ব্যাপারী স্পষ্ট জানিয়েছেন যে তিনি এই কাজের কোনও দায় নেবেন না। কারণ সবটাই হচ্ছে তাঁর অগোচরে ও তাঁকে না জানিয়েই। তিনি এও বলেছেন যে এই কাজ যারা করছে, তা তাদের একান্তই নিজস্ব ব্যাপার। অর্থাৎ তাঁর দিকে যাতে এই নিয়ে ভবিষ্যতে কোনও আঙুল না ওঠে, এই কারণেই আগের থেকে সাবধানতা অবলম্বন করলেন তৃণমূল বিধায়ক।

You might also like
Comments
Loading...