সব খবর সবার আগে।

ঘাসফুলে যোগ দেওয়ার পদ্মফুলের বিধায়ক পদ ছেড়ে দেবেন মুকুল, দাবী মুকুল ঘনিষ্ঠমহলের

তৃণমূলে যোগ দেওয়ার পর নিজের বিধায়ক পদ ছাড়তে পারেন মুকুল রায়। অন্তত, তাঁর ঘনিষ্ঠমহল এমনটাই বলছে। তবে, ৭৫ জন বিধায়কের মধ্যে কেবল মুকুল পদ ছেড়ে দিলে তাঁর বিরুদ্ধে দলত্যাগ বিরোধী আইন রুজু করতে পারে বিজেপি। কিন্তু মুকুল সেই ঝুঁকি নেবেন কেন? আর মমতাই বা এই ‘অনৈতিক’ অবস্থানের দায় নিতে যাবেন কেন?

অন্য প্রশ্নও থাকছে। বিধায়ক পদ ছেড়ে দিলেই কী মুকুল সংসদীয় রাজনীতি থেকে দূরে সরে থাকতে পারবেন? তবে মুকুল ঘনিষ্ঠের সূত্র অনুযায়ী, তেমনটা হবে না। কারণ মুকুলকে রাজ্যসভার সাংসদ করতে পারেন মমতা। এর উপর মুকুলের উপর বর্তাতে পারে দলীয় সংগঠনে দায়িত্বশীল পদও।

আরও পড়ুন- আজই তৃণমূলে যোগ দেবেন মুকুল রায়! কালীঘাটে সাক্ষাৎ মমতার সঙ্গে, এরপর গন্তব্য তৃণমূল ভবন

মুকুল এর আগেও একবার বিধানসভা ভোটে লড়লেও এবারেই তিনি জিতেছেন। তা-ও আবার কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের নির্দেশে, নিজের ইচ্ছায় নয়। এই কারণেই ভোট প্রচার পর্বে বা তার পরে মুকুলকে সেভাবে সক্রিয় দেখা যায়নি। ভোটের ফলাফলের পর থেকেই দলের সঙ্গে দুরত্ব বাড়াতে শুরু করেন মুকুল। সেই দুরত্ব এবার বাস্তবে পরিণত হল আজ। বিজেপির সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করলেন তিনি।

২০১৭ সালে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যান মুকুল। তাঁর সেই সফর শেষ হল ২০২১ সালে। তবে বিজেপিতে যে মুকুল খুব একটা স্বচ্ছন্দে ছিলেন, তা-ও বলা যায় না। এমনকি, লোকসভা ভোটের পরও তাঁকে যথেষ্ট ‘মর্যাদা’ দেওয়া হয়নি বিজেপিতে। ঘনিষ্ঠ সূত্রের খবর, ২০২০ সালের মাঝে থেকেই মুকুল দল বদলানোর কথা ভাবেন। কিন্তু তখন মত বদলান। তবে এর পর থেকে তিনি মমতা বা তৃণমূলের বিরুদ্ধে কোনও মন্তব্য করেননি তিনি। সেই সময় থেকেই তৃণমূলের প্রতি মুকুলের সমীকরণ বদলানোর কাজ শুরু হয়ে যায়।

আরও পড়ুন- ‘হিন্দু লাইভস ম্যাটার’, রাজ্যে হিন্দুদের উপর হওয়া অত্যাচারের ঘটনায় মমতাকে ‘জাগাতে’ তৃণমূল দফতরে ব্যানার

আজ দুপুরেই তৃণমূল ভবনে পৌঁছবেন পুত্র শুভ্রাংশু-সহ মুকুল। সেখানেই তাদের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার বিষয়ে সিলমোহর  পড়বে। আজ তৃণমূল ভবনের এই বৈঠকে দলের প্রথমসারির নেতাদেরও থাকতে বলা হয়েছে।

You might also like
Comments
Loading...