সব খবর সবার আগে।

এবার বিয়েবাড়িতে আসতে পারবেন ঠিক এতজন, জানিয়ে দিল নবান্ন! সঙ্গে আরও একগুচ্ছ নির্দেশিকা

করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে নিত্যদিন নতুন নতুন নির্দেশিকা জারি করছে সরকার। গতকালই, বাজার-হাট, জিম, সুইমিং পুল, পার্লার, সেলুন খোলার সময়ে রাশ টেনেছিল রাজ্য সরকার। এবার ফের নতুন নির্দেশিকা প্রকাশ করে জানানো হল যে এবার থেকে বিয়ে বা কোনও সামাজিক অনুষ্ঠানে  ৫০ জনের বেশি লোক জমায়েত করা যাবে না। এই পরিস্থিতিতে যতটা সম্ভব কম অনুষ্ঠান করা যায়, ততই ভালো।

আরও পড়ুন- কোভ্যাকসিন নাকি কোভিশিল্ড? কোনটা বাছবেন? কোন টিকা বেশি কার্যকরী? পড়ে নিন

গত বছর লকডাউন থেকে আনলক পর্বে প্রবেশ করার সময়ও বেই একই গাইডলাইন দেয় কেন্দ্র সরকার। এবার করোনার দ্বিতীয় ঢেউ যখন বেলাগাম পরিস্থিতিতে এসে ঠেকেছে, তখন সেই একই নির্দেশিকা জারি করল নবান্ন।

গতকাল বাজার-হাট খোলা রাখার ক্ষেত্রে নবান্ন জানিয়েছিল, সকাল ৭টা থেকে ১০টা ও বিকেল ৩টে থেকে ৫টা পর্যন্ত খোলা রাখা যাবে। ছাড় দেওয়া হয়েছে ওষুধের দোকান, মুদি দোকান ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের দোকানকে। কিন্তু এই নিয়ে একটা ধন্দ তৈরি হয়েছিল।

এরপর, আজ, শনিবার একটি বিজ্ঞপ্তিতে রাজ্য সরকার স্পষ্ট করল, স্বাস্থ্য সংক্রান্ত পরিষেবা, বিদ্যুৎ, টেলিকম, যানবাহন, মুদি খানা, মিষ্টির দোকান, মাংসের দোকান, দুধ সরবরাহ ইত্যাদি বিধিনিষেধের বাইরে থাকছে। তবে সমস্ত খুচরো ও আউটলেটকে বেঁধে দেওয়া সময় মেনে চলতে হবে। সব ক্ষেত্রেই মাস্ক, স্যানিটাইজার ও সামাজিক দূরত্ব বাধ্যতামূলক।

আরও পড়ুন- এবার করোনা উপসর্গ থাকলেই ভর্তি নিতে হবে, কড়া নির্দেশ দিল স্বাস্থ্য দপ্তর!

গতকালের এই নির্দেশিকার পর আজ গোটা রাজ্যেই তা কার্যকর হতে লক্ষ্য করা যায়। অনেক জায়গাতেই দেখা গিয়েছে, সকাল ১০টার পর রাস্তাঘাট ফাঁকা হতে শুরু করেছে। বাংলায় এই মুহূর্তে পূর্ণ লকডাউন হবে কী না, সেই বিষয়টি এখ অনেকটাই নির্ভর করছে জনগণের উপর। অন্তত নবান্নের আমলাদের তাই-ই দাবী। আংশিক লকডাউন ইতিমধ্যে রাজ্যে চালু হয়েই গিয়েছে। এরপর তা কোনদিকে গড়ায়, তা তো সময়ই বলবে।

You might also like
Comments
Loading...