রাজ্য

করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেই, ভর্তি নিল না কোনও হাসপাতাল! মিলল না অক্সিজেন, বিনা চিকিৎসায় মৃত্যু বৃদ্ধার

কোভিড টেস্টের রিপোর্ট ছিলনা। আর তাই ভর্তি নিলনা কোন‌ও হাসপাতাল। কার্যত বিনা চিকিৎসায় মারা গেলেন বৃদ্ধা। গড়ফার এই ঘটনার ছবিতে এখন প্রশ্নের মুখে বাংলার স্বাস্থ্যব্যবস্থা।

আরও পড়ুন-টিকার রাজনীতি! ক্ষমতায় এলেই বাংলায় বিনামূল্যে মিলবে করোনা প্রতিষেধক, আশ্বাস বিজেপির

কলকাতার গড়ফার হালতুর বাসিন্দা ওই বৃদ্ধার বয়স হয়েছিল ৬৭। জানা গিয়েছে, ১৫ই এপ্রিল থেকে জ্বরে ভুগছিলেন তিনি। যথারীতি হয় তাঁর করোনা পরীক্ষা‌। কিন্তু রিপোর্ট হাতে পাওয়ার আগেই বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বৃদ্ধার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। প্রবল শ্বাসকষ্ট শুরু হয় তাঁর। সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে একটি হাসপাতালে নিয়ে যায় পরিবারের সদস্যরা। অভিযোগ, করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট সঙ্গে না থাকায় থাকায় তাঁকে ভর্তি নেওয়া হয়নি। এরপর রোগীকে বাঙুর হাসপাতালে নিয়ে গেলেও একই সমস্যার মুখোমুখি হন তাঁরা। পরবর্তীতে বৃদ্ধাকে বাড়িতে নিয়ে যেতে বাধ্য হন পরিবারের সদস্যরা।  সেখানেই ব্যবস্থা করা হয় অক্সিজেন দেওয়ার। কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যেই মৃত্যু হয় তাঁর। মৃত্যুর পর করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পান পরিবারের সদস্যরা। জানতে পারেন, বৃদ্ধার শরীরে বাসা বেঁধেছিল মারণ ভাইরাস। সঙ্গে সঙ্গে দেহ সৎকারের জন্য স্বাস্থদপ্তরে ফোন করেন মৃতার পরিবারের সদস্যরা।

আরও পড়ুন-মানবিক চোর! ‘দুঃখিত, জানতাম না এখানে করোনার ওষুধ আছে’, চুরি করেও চিঠি লিখে ওষুধ ফিরিয়ে দিল চোর

অভিযোগ উঠেছে, শুক্রবার বেলা ১১ টা পর্যন্ত চার স্বাস্থ্যদপ্তরে ফোন করলেও কোনও লাভ হয়নি। এমনকী পুরসভায় জানিয়েও প্রথমে কোনও সুরাহা মেলেনি। খবর দেওয়া হলেও ১০২ নম্বর ওয়ার্ডের কো-অর্ডিনেটরও সহযোগিতার হাত বাড়াননি বলেই অভিযোগ। ফলে প্রায় ১২ ঘণ্টা বাড়িতেই পড়ে থাকে করোনায় মৃত বৃদ্ধার দেহ। দীর্ঘক্ষণ পর তা নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করা হয় প্রশাসনের তরফে। এই ঘটনায় স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্নের মুখে হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যদপ্তরের ভূমিকা। 

Related Articles

Back to top button